ময়মনসিংহে মোটরসাইকেলের জন্য তেল নিতে গিয়ে নিখোঁজ হন ব্যবসায়ী আজিজুল। এর একদিন পর শুক্রবার তার মরদেহ মইলাকান্দা ইউনিয়নের লামাপাড়া ও টাঙ্গুয়া ব্রিজের সীমান্তবর্তী বগাসূতা খালে পাওয়া যায়। যেখানে মরদেহ পাওয়া যায় তার থেকে সাত কিলোমিটার দূরে পাওয়া যায় তার মোটরসাইকেল। পুলিশ বলছে, আজিজুলকে হাত বেঁধে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়।   

নিহত আজিজুল নেত্রকোণা জেলার পূর্বধলা উপজেলার গোয়ালাকান্দা ইউনিয়নের মহিষবেড় গ্রামের আব্দুল কাদিরের ছেলে।

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, আজিজুল পেশায় গরুর খামারি। গত বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে আজিজুল মোটরসাইকেলে তেল নিতে বাড়ি থেকে বের হওয়ার পর নিখোঁজ হয়। স্বজনরা তার মোবাইলে ফোন দিলেও তা বন্ধ পায়। এদিকে শুক্রবার সকালে টাঙ্গুয়া ব্রিজের নিচে খালে পানিতে একটি মরদেহ ভাসতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দিলে পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে। পরে তারা গিয়ে লাশ শনাক্ত করে।  

পুলিশ জানায়, সুরতহালে নিহতের গলায় দাগ ও হাতে রশি দিয়ে বাঁধার দাগ পাওয়া গেছে। হাত বেঁধে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। পুলিশ রেকর্ড বলছে- নিহত আজিজুল হকের বিরুদ্ধে হত্যা, ডাকাতিসহ চারটি মামলা ও চারটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) রয়েছে। 

এদিকে আজিজুলের মোটরসাইকেলটি গৌরিপুর ইউনিয়নের দৌলতপুর মাদ্রাসার সামনে থেকে উদ্ধার করে থানায় হস্তান্তর করে স্থানীয়রা। 

নিহতের ভাই শফিকুল ইসলাম বলেন, মোটরসাইকেলে তেল নিতে গিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়েছিল তার ভাই। কিন্তু তার ভাইকে হত্যা করে খালে লাশ ফেলে দেওয়া হয়। প্রতিপক্ষরা এমন করতে পারে বলে ধারণা করছেন তারা। 

গৌরীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খান আবদুল হালিম সিদ্দিকী বলেন, হাত বেঁধে শ্বাসরোধে আজিজুলকে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ বিষয়ে মামলার প্রক্রিয়া চলছে বলেও জানান তিনি।