নাটোর-বগুড়া মহাসড়কে পেঁয়াজভর্তি ট্রাকে ডাকাতি ও ব্যবসায়ী খুনের রহস্য অবশেষে উন্মোচন করা হয়েছে। দীর্ঘ তদন্তের পর চাঞ্চল্যকর এ খুনের ঘটনার প্রধান আসামি নাটোরের বড়াইগ্রামের ভবানীপুরের এছার উদ্দিনকে শনাক্ত করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

এছার উদ্দিন ডাকাতি মামলায় কুমিল্লা কারাগারে ছিলেন। রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে তিনি ঘটনার সঙ্গে নিজের ও সহযোগীদের সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। এ ঘটনায় জড়িত তার পাঁচ সহযোগীকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

সিরাজগঞ্জ পিবিআই পুলিশ সুপার মো. রেজাউল করিম স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানান, ২০০০ সালের ১৭ নভেম্বর নাটোর থেকে পেঁয়াজভর্তি ট্রাক বগুড়ার নন্দীগ্রামে যাওয়ার পথে মহাসড়কে ডাকাতের কবলে পড়ে। ওই সময় ডাকাত সর্দার এছার উদ্দিনের নেতৃত্বে ছয় সদস্যের দল পেঁয়াজ ব্যবসায়ী নুর মোহাম্মদকে খুন করেন। এরপর তারা সিরাজগঞ্জের সলঙ্গা থানার বগুড়া-নগরবাড়ী মহাসড়কের পাটধারীতে তার লাশ ফেলে দেন। ট্রাকভর্তি পেঁয়াজ পরে গাজীপুরে বিক্রি করে দেন তারা। ঘটনার বিষয়ে নিহত নুর মোহাম্মদের বোনজামাই জাকির হোসেন সলঙ্গা থানায় মামলা করেন।

এ ঘটনার উল্লেখযোগ্য কোনো তথ্য না পাওয়া গেলেও উত্তরাঞ্চলের মহাসড়কে অন্যান্য ডাকাতির ঘটনার সূত্র ধরে মামলাটি তদন্ত করা হয়।