শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করতে গিয়ে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ার উধুনিয়া ইউনিয়নের তেলিপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের তোপের মুখে পড়েন ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল ও তার সঙ্গীরা। 

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল ও তার সঙ্গীরা যেসব শিক্ষা উপকরণ নিয়ে এসেছেন, তা ‘নিম্নমানের’। এই অভিযোগে তারা চেয়ারম্যান ও তার সঙ্গীদের স্কুলে আটকে রাখেন।

গত মঙ্গলবার বিকেলে এমন ঘটনায় উল্লাপাড়া উপজেলাজুড়ে আলোড়ন তুলেছে।

পুলিশ এই ঘটনায় তেলিপাড়া স্কুলের নৈশ প্রহরী আব্দুল খালেককে আটক করেছে। তবে অভিযুক্ত চেয়ারম্যান নিম্নমানের শিক্ষা উপকরণের অভিযোগ অস্বীকার করেন। 

তেলিপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মধুসূধন সরকার জানান,  বাংলাদেশ লোকাল গভর্নেন্স সাপোর্ট প্রজেক্ট-এলজিএসপি প্রকল্পের আওতায় সরকার ২০২০-২০২১ অর্থবছরে তেলিপাড়া স্কুলের শিক্ষার্থীদের শিক্ষা উপকরণ প্রদানের জন্য উধুনিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল জলিলকে ২ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়। কিন্তু আব্দুল জলিল এই বরাদ্দের অর্থ থেকে সময় মত তেলিপাড়া স্কুলের শিক্ষার্থীদের মধ্যে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করেননি। বিষয়টি তেলিপাড়া স্কুল কর্তৃপক্ষ জানত না। 

কয়েক দিন আগে এলজিএসপি’র সিরাজগঞ্জ অফিস থেকে তেলিপাড়া স্কুলে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করার ব্যাপারে একটি তদন্ত টিম আসে। তাদের কাছ থেকে প্রধান শিক্ষক বিষয়টি জানতে পারেন। 

এদিকে এলজিএসপির পক্ষ থেকে তদন্তের খবর পেয়ে বুধবার বিকেলে উক্ত চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল তার পরিষদ সদস্য গোপেন্দ্রনাথ ও আব্দুল কুদ্দুসকে নিয়ে কিছু স্কুল ব্যাগ কিনে বিতরণের জন্য তেলিপাড়া স্কুলে আসেন। 

এসময় শিক্ষাথীরা ক্ষুব্ধ হয়ে স্কুল চত্বরে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে নিম্নমানের স্কুল ব্যাগ আনার অভিযোগে স্লোগান দেয়। এক পর্যায়ে তারা চেয়ারম্যান ও তার সঙ্গীদের কিছু সময় অবরুদ্ধ করে রাখে। পরে স্কুলের শিক্ষকরা চেয়ারম্যানকে মুক্ত করেন।

উধুনিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল এ বিষয়ে বলেন, ‘করোনার কারণে স্কুল দীর্ঘ দিন বন্ধ থাকায় সময়মত তেলিপাড়া স্কুলে ছাত্র ছাত্রীদেরকে স্কুল ব্যাগ দিতে পারিনি। মঙ্গলবার ওই স্কুলে স্কুল ব্যাগ বিতরণ করতে গেলে কিছু শিক্ষক-কর্মচারীর প্ররোচনায় শিক্ষার্থীরা খারাপ আচরণ করেছে।’

চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল তেলিপাড়ার স্কুলের প্রধান শিক্ষকসহ কয়েকজন শিক্ষক ও কর্মচারীর বিরুদ্ধে মঙ্গলবার রাতে উল্লাপাড়া মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন। 

উল্লাপাড়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির জানান, বুধবার সকালে তেলিপাড়া স্কুলের নৈশপ্রহরী আব্দুল খালেকে থানায় আটক করে প্রকৃত ঘটনা সম্পর্কে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

সিরাজগঞ্জ স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক মোহাম্মদ তোফাজ্জল হোসেন বলেন, ‘করোনার কারণে হয়ত চেয়ারম্যান সময়মত তেলিপাড়া স্কুলে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করতে পারেননি। আব্দুল জলিল জানিয়েছেন, তিনি অবিলম্বে সব শিক্ষা উপকরণ সরবরাহ করবেন। চেয়ারম্যান কাজ না করলে তাকে বিল দেওয়া হবে না।’