শুক্রবার ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কে উল্লাপাড়া উপজেলার সলংগা থানার গোঁজা ব্রিজের কাছে সড়ক দুর্ঘটনার পর আহত অবস্থায় সাদি খান নামের ৭ বছরের এক শিশুকে পুলিশ উদ্ধার করে হাটিকুমরুল সাখাওয়াত এইচ মেমোরিয়াল হাসপাতালে ভর্তি করেছে। ছেলেটি তার বাবার নাম শাহীন খান এবং পুরান ঢাকা এলাকায় তাদের বাড়ি-শুধু এইটুকুই বলতে পারছে। তবে এর বাইরে সে কিছুই বলতে পারছে না। 

সাখাওয়াত এইচ মেমোরিয়াল হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ রবিউল ইসলাম জানান, ছেলেটি তাদের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে এবং সে এখন শঙ্কামুক্ত। তবে তার আর কোন পরিচয় ডাক্তাররা এখনও জানতে পারেনি। 

এ ব্যাপারে হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা লুৎফর রহমান জানান, ছেলেটির পরিবারের সঙ্গে পুলিশ যোগাযোগের চেষ্টা করছে। যোগাযোগ করতে পারলে সাদি খানকে পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হবে। 

শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে ন্যাশনাল পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস রাজশাহী থেকে ঢাকা যাবার পথে উক্ত গোঁজা সেতুর পাশে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে খাদে পড়ে গেলে ৪জন নিহত হয় এবং আহত হয় ১০ জন। এদের ৪ জনকে গুরুতর অবস্থায় প্রথমে সাখাওয়াত এইচ মেমোরিয়াল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এখানে অবস্থার অবনতি হলে তাদের বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

নিহতদের মধ্যে দুইজনের পরিচয় জানা গেছে। এদের একজন হলেন, পুলিশ পরিদর্শক সতেন্দ্রনাথ প্রামানিক (৫৪)। তিনি রাজশাহী মেট্টোপলিটান পুলিশে কর্মরত এবং তিনি নাটোরের বাগাতিপাড়ার বাসিন্দা। অপরজন পাবনা জেলার গৃহবধু সুফিয়া খাতুন (৬২)।