চট্টগ্রাম নগরীতে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের প্রতিবাদ করায় রহমত উল্লাহ নামে এক স্কুল শিক্ষককে চলন্ত বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে নিচে ফেলে দেয় হেলপার। তারপর রাস্তায় পড়ে যাওয়া শিক্ষকের পায়ের ওপর দিয়ে চালিয়ে দেওয়া হয় বাস। এতে ওই শিক্ষকের পা, হাত ও মুখে মারাত্মক জখম হয়। গুরুতর আহত অবস্থায় শনিবার তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রাত সাড়ে আটটায় বেসরকারি ন্যাশনাল হাসপাতালে তার পায়ে অস্ত্রোপচার চলছিল। 

এর আগে সকালে কোতোয়ালি থানার পুরাতন রেলস্টেশন এলাকায় হোটেল সৈকতের সামনে এ ঘটনা ঘটে। রহমত উলল্গাহ নগরীর পাঁচলাইশ এলাকার হাবিবউলল্গাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক।

আহত শিক্ষক রহমত উল্লাহ নগরের সদরঘাট এলাকার পিটিআই (প্রাইমারি ট্রেনিং ইন্সটিটিউট) প্রশিক্ষণার্থী। অক্সিজেন এলাকার নিজ বাসা থেকে পিটিআইয়ে আসা যাওয়া করতেন। শনিবার সকালে অক্সিজেন এলাকা থেকে বাসে করে পিটিআই যাওয়ার জন্য ওই বাসে উঠেন। বাসের হেলপার ও চালক অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করে। এ ঘটনার প্রতিবাদ করেন তিনি। এ নিয়ে চালক ও হেলপারের সঙ্গে তার কথা কাটাকাটি হয়। তিনি স্টেশন রোডের বটতলী এলাকায় নেমে যেতে চাইলে তাকে নামতে না দিয়ে পুরাতন রেলস্টেশন এলাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর হেলপার ধাক্কা দিয়ে চলন্ত বাস থেকে ফেলে দেয়। তিনি গুরুতর আহত হন। পরে আশপাশের লোকজন তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন।

কোতোয়ালি থানার ওসি মো. নেজাম উদ্দিন বলেন, একজন শিক্ষককে বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেওয়া এবং পরে তার পায়ের উপর দিয়ে বাস চালিয়ে দেওয়ার অভিযোগ পেয়েছি। আমরা বাসটি শনাক্তের চেষ্টা করছি। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আহত শিক্ষকের সহকর্মী শিক্ষক অভিজিত বড়ূয়া বলেন, ‘নগরীর অক্সিজেন থেকে তিনি নিউমার্কেটে যাচ্ছিলেন। আগে অক্সিজেন থেকে নিউমার্কেট ৮-১০ টাকা ভাড়া নেওয়া হতো। এখন ১৫ টাকা ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে। কিন্তু হেলপার ১৭ টাকা দাবি করেন। রহমত স্যার প্রতিবাদ জানিয়ে ১৭ টাকা দিয়ে নামার সময় হেলপার তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। চালক স্যারের পায়ের উপর দিয়ে বাস চালিয়ে চলে যায়।’