নাটোরের বড়াইগ্রামে একসাথে চার মেয়ের জন্ম দিয়েছেন লাভলী খাতুন (২৬) নামে এক গৃহবধূ।  তবে এর মধ্যে একজন মায়ের গর্ভেই মারা যায়। বুধবার রাত ১২টার দিকে উপজেলার বনপাড়া আমিনা হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে ওই চার মেয়ের জন্ম হয়।

লাভলী খাতুন উপজেলার বড়াইগ্রাম ইউনিয়নের শ্রীরামপুর গ্রামের লিটন হোসেনের স্ত্রী। লিমন হোসেন (৭) এবং লিজা খাতুন (৫) নামে এই দম্পতির সংসারে আরও দু’টি সন্তান রয়েছে । একসাথে চার সন্তানের জন্মের খবর ছড়িয়ে পরলে শিশুদের একনজর দেখতে হাসপাতালে উৎসুক মানুষ ভিড় জমায়।

লাভলীর স্বামী  লিটন হোসেন বলেন, বুধবার রাতে প্রসব বেদনা উঠলে লাভলীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখাতে রাতে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে তিন কন্যা সন্তানের জন্ম হয়।

তিনি আরও বলেন আমি খুবই আনন্দিত। তবে একসঙ্গে তিন সন্তানের লালন-পালন আমার জন্য কঠিন হয়ে যাবে।

লাভলী খাতুন বলেন, আমি অনেক খুশি। তবে নবজাতকের লালন পালন নিয়ে চিন্তিত।

আমিনা হাসপাতালের সত্ত্বাধিকারী ডা. আনসারু হক জানান, চার নবজাতকের একজনের মায়ের পেটেই মৃত্যু হয়েছিল। মৃত নবজাতকের মাথা ও দুই হাত ছিল না। অপর তিন নবজাতক ও মা সুস্থ আছে।