সাতক্ষীরায় আম দ্রুত পাকাতে গাছ থেকে নামিয়ে আমে মেশানো হচ্ছে রাসায়নিক দ্রব্য। পরে সেগুলো বাজারে বিক্রি করা হয়।

সোমবার সাতক্ষীরার তালা উপজেলার তেঁতুলিয়া ইউনিয়নের শুকদেবপুর গ্রামের মনিরুদ্দীন বিশ্বাসের আমবাগানের গাছ থেকে আম নামান শ্রমিকরা। আমগুলো নিচে সাজিয়ে রাখা হয়েছে। সেখানেই ব্রাইট-১৫ নামের রাসায়নিক দ্রব্য পানিতে মিশিয়ে স্প্রে করছেন আম ব্যবসায়ী শওকত আলী।

তিনি বলেন, সব ব্যবসায়ীরাই আমে এটা দেয় তাই আমিও দেই। এই ওষুধ দিলেই দ্রুত আম পেকে যায় ও রঙ সুন্দর হয়। এটা অপরাধ আমি জানি, তাও দিচ্ছি কারণ সবাই দেয়। এই আম তালা বাজার ও খুলনার বিভিন্ন স্থানে নিয়ে বিক্রি করি। প্রশাসনের কেউ বাধা দেয়নি।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, সব আম ব্যবসায়ীরা এখন গাছ থেকে আম নামাচ্ছেন। গাছতলায় আমে রাসায়নিক স্প্রে করে বাজারজাত করা হচ্ছে। রাসায়নিক দিলে একদিনেই আম পেকে যায়। আমে বিষ দিয়ে পাকালে সেটি ক্ষতিকর সবাই জানে তবে একাজে কেউ বাধা দেয় না। প্রশাসন বা কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা কোনো পদক্ষেপ নেয়নি।

সাতক্ষীরা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর খামারবাড়ির উপ-পরিচালক নুরুল ইসলাম বলেন, কোনোভাবেই আমে রাসায়নিক দ্রব্য ক্যামিকেল বা বিষ প্রয়োগ করা যাবে না। জেলার সকল আম ব্যবসায়ীদের এ ব্যাপারে সতর্ক করা হয়েছে। গত ২৭ এপ্রিল জেলা নিরাপদ আম বাজারজাতকরণ ব্যবস্থাপনা কমিটির মিটিং করা হয়েছে। সেখানে দিনক্ষণ নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে কোন আম কোন তারিখ থেকে ব্যবসায়ীরা নামাতে পারবেন। কেউ আমে ক্যামিকেল বা রাসায়নিক দ্রব্য প্রয়োগের খবর পেলেই আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

খামারবাড়ির উপ পরিচালক নুরুল ইসলাম বলেন, আমে রাসায়নিক মেশানোর খবর আমাদের কাছে আসেনি। অসাধু কিছু ব্যবসায়ী রয়েছেন। তালার উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তাকে বিষয়টি জরুরিভাবে দেখার জন্য নির্দেশনা দিয়েছি।

মন্তব্য করুন