সিলেটে সীমান্তবর্তী জৈন্তাপুর উপজেলায় ছাগলে ধানের চারা চারা খাওয়াকে কেন্দ্র করে দুই পরিবারের মধ্যে সংঘর্ষে লাঠির আঘাত ও দায়ের কোপে সুফিয়ান আহমদ (১৯) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টায় ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। পরে শুক্রবার পুলিশ হাসপাতাল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে। এই ঘটনায় নিহতের পরিবারের লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে নাছির আহমদ নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

নিহত সুফিয়ান আহমদ উপজেলার চারিকাটা ইউনিয়নের সরুখেল পূর্ব গ্রামের সিদ্দেক মিয়ার ছেলে। জৈন্তাপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর আহমদ এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে সিদ্দেক মিয়ার বাড়ির ছাগল নাছির মিয়ার বাড়ির বীজতলায় ধানের চারা খেয়ে ফেললে উভয় পরিবারের লোকজনের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে উভয় পরিবারের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধলে আব্দুল হেকিমের ছেলে হারিছ আহমদ, নাছির আহমদ ও হারিছ আহমদের ছেলে ইমরান আহমদ লাঠি ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে সুফিয়ান ও তার বাবা ছিদ্দেকের ওপর হামলা করেন। এ সময় সুফিয়ান লাঠি ও দায়ের কোপে গুরুতর আহত হন। এ ছাড়া সুফিয়ানের বাবা সিদ্দেক মিয়াও আহত হন। এরপর বাবা ও ছেলেকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নেওয়ার পর চিকিৎসকের পরামর্শে ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

চারিকাটা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ আলম চৌধুরী তোফায়েল চিকিৎসকের বরাতে জানান, আহত সিদ্দেক মিয়ার অবস্থাও আশঙ্কাজনক।

জৈন্তাপুর থানার ওসি গোলাম দস্তগীর আহমদ জানান, খবর পেয়ে পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থলে গিয়ে স্থানীয়দের সহযোগিতায় আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে প্রেরণ করে। এরপর চিকিৎসকের পরামর্শে তাদের ওসমানী হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। তিনি বলেন, শুক্রবার নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে একটি অভিযোগ দাখিল করা হয়েছে। এই ঘটনায় আটক নাছির আহমদকে গ্রেপ্তার দেখানো হবে। 

মন্তব্য করুন