গাজীপুরে সেফহোম থেকে আবারও পালিয়ে গেছে ১৪ কিশোরী। বুধবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে শহরের ভোগড়া মোগরখাল এলাকার 'নারী ও শিশু-কিশোরী হেফাজতিদের নিরাপদ আবাসন কেন্দ্রে' এ ঘটনা ঘটে। পরে বাসন থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে বৃহস্পতিবার ভোরে জয়দেবপুর রেলস্টেশন থেকে সাত কিশোরীকে উদ্ধার করেছে বলে জানিয়েছেন গাজীপুর মহানগর পুলিশের উপপুলিশ কমিশনার (অপরাধ) জাকির হাসান।

পলাতক নিবাসীরা হলো- লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা থানার মাঠগ্রাম এলাকার মিলন মিয়ার মেয়ে মিম আক্তার (১৭), পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ থানার দেউলি এলাকার সৈয়দ মিল্টনের মেয়ে মলি আক্তার (১৭), নরসিংদীর শিবপুর থানার ধানুয়া এলাকার শাহ আলমের মেয়ে মনিরা (১৫), মুন্সীগঞ্জের লৌহজং থানার বড় নওয়াপাড়া এলাকার বর্না আক্তার নিঝুম (১৫), আশুলিয়া থানা সদর এলাকার ওমর ফারুকের মেয়ে ফাহমিদা আক্তার রিয়া (১৬), নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের কবির মিয়ার মেয়ে তাসলিমা (১৫) এবং একই জেলার বন্দর থানার বাঘবাড়ি এলাকার আব্দুর রশিদের মেয়ে জামিলা খাতুন সুইটি (১৭)।

উদ্ধার হওয়া সাতজনের মধ্যে তিনজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলো- নারায়ণগঞ্জের আফজাল হোসেনের মেয়ে লামিয়া, নরসিংদীর মাহমুদা আক্তার তুলি ও তানিয়া। তাদের মধ্যে বাকি চারজন বাকপ্রতিবন্ধী বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় ১৪ কিশোরীর বিরুদ্ধে বাসন থানায় মামলা করেছেন নিবাসের স্টোরকিপার আব্দুর রহমান মোল্লা।

অভিযোগ রয়েছে, নিরাপদ আবাসন কেন্দ্রের ভেতরে দায়িত্বশীল কেউ ছিলেন না। রাতের বেলায় কখনও কেউ থাকেনও না। মন চাইলে মাসে দু-একবার আসেন। এই সুযোগে জানালার গ্রিল ভেঙে ওড়না বেয়ে প্রায় ২৫ ফুট দেয়াল টপকে পালিয়ে যায় কিশোরীরা। ঘটনার পরপরই জেলা প্রশাসক এসএম তরিকুল ইসলাম এবং বৃহস্পতিবার মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব সায়েদুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।