ধর্ষণচেষ্টাকারীর পুরুষাঙ্গ কেটে সম্ভ্রম বাঁচালেন গৃহবধূ

প্রকাশ: ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০     আপডেট: ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০   

চরফ্যাসন (ভোলা) প্রতিনিধি

আহত নঈম -সংগৃহীত ছবি

আহত নঈম -সংগৃহীত ছবি

ভোলার চরফ্যাসনে ধর্ষণের চেষ্টাকালে যুবকের লিঙ্গ কেটে দিয়েছেন এক গৃহবধূ। রোববার গভীর রাতে শশীভূষণ থানার রসুলপুর ইউনিয়নের ভাসানচর গ্রামের আবাসন প্রকল্পে এই ঘটনা ঘটে।

পরে স্থানীয়রা নঈম (৩৫) নামে ওই যুবককে উদ্ধার করে চরফ্যাসন হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছেন। নঈম একই গ্রামের আজম আলী সর্দারের ছেলে এবং পেশায় ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেলের চালক।

এঘটনায় ওই গৃহবধূ বাদি হয়ে সোমবার দুপুরে নঈমকে আসামি করে শশীভূষণ থানায় ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে মামলা দায়ের করেছেন।

গৃহবধূ জানান, তার স্বামী পেশায় জেলে। ঘটনার রাতে স্বামী বাড়ি ছিলেন না, মাছ ধরার কাজে নদীতে ছিলেন। আবাসনের ঘরে ৯ বছরের শিশুসন্তানসহ ঘুমিয়ে ছিলেন তিনি। গভীর রাতে প্রাকৃতিক ডাকে সাড়া দিতে বাহিরে যান। এসময়ে বাইরে ওৎ পেতে থাকা নাঈম ঘরে ঢুকে চকির নিচে লুকিয়ে থাকেন। গৃহবধূ বাহির থেকে এসে দরজা বন্ধ করে আবারও ঘুমিয়ে পড়েন। পরে ঘুমন্ত অবস্থায় নঈম তাকে জাপটে ধরেন এবং মুখ চেপে ধরে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এসময় তিনি নিজের সম্ভ্রম বাঁচাতে বিছানার পাশে থাকা ব্লেড নিয়ে নঈমের পুরুষাঙ্গ কেটে দেন। 

প্রতিবেশী মাকসুদ জানান, পুরুষাঙ্গ কাটার পর বাঁচার জন্য চিৎকার শুরু করেন নঈম। চিৎকার দিয়ে উঠেন গৃহবধূও। পরে তারা ছুটে এসে নঈমকে উদ্ধার করে হাসপাতাল পাঠান।

চরফ্যাসন হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা.রাসেল আহমেদ মিয়া জানান, পুরুষাঙ্গ ৫০ ভাগ ক্ষত থাকায় নঈমকে বরিশাল পাঠানো হয়েছে। 

শশীভূষণ থানার ওসি রফিকুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় ধর্ষণচেষ্টার মামলা নেওয়া হয়েছে।