নোয়াখালীতে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা, আটক ৩

প্রকাশ: ০৬ আগস্ট ২০২০   

নোয়াখালী প্রতিনিধি

নিহত ব্যবসায়ী আব্দুল মান্নান

নিহত ব্যবসায়ী আব্দুল মান্নান

নোয়াখালীর সুবর্ণচরে পূর্ব বিরোধের জের ধরে আব্দুল মান্নান (৫৫) নামে এক ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় এক ইউপি সদস্যসহ তিনজনকে আটক করা হয়েছে।

বুধবার রাত ১০টার দিকে উপজেলার ১ নম্বর চর জব্বার ইউনিয়নের কাঞ্চন বাজারে এ ঘটনা ঘটে। 

মান্নান পশ্চিম চর জব্বার গ্রামের মৃত মুজিবুল হকের ছেলে ও কাঞ্চন বাজারের ব্যবসায়ী। এ ঘটনায় আরও তিনজন আহত হয়েছেন। 

চর জব্বার থানা পুলিশ ও নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ১ নম্বর চর জব্বার ইউনিয়নের পশ্চিম চর জব্বার গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল মান্নান ও তার ভাইদের সঙ্গে একই এলাকার চর জব্বার ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের বর্তমান সদস্য বাহার মেম্বার ও তার ভাগনে চর জব্বার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক ফজলুর দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। 

নিহতের ছেলে নিজাম উদ্দিন জানান, মান্নান কাঞ্চন বাজারের সয়াবিন ব্যবসায়ী। বুধবার রাতে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে ফজলুল হক ও তার ভাতিজা আইয়ুব আলী হাজারির নেতৃত্বে ৩০-৩৫ জনের একদল সন্ত্রাসী ধারালো অস্ত্র, আগ্নেয়াস্ত্র ও লোহার রড নিয়ে আব্দুল মান্ননের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ঢুকে এলাপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে। এসময় মান্নান অচেতন হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়লে তার ভাতিজা ওষুধ ব্যবসায়ী ও পল্লী চিকিৎসক আবুল কাশেমের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালায়। এসময় তাকে কুপিয়ে জখম করে। তাকে উদ্ধার করতে এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা তার স্বজন রাসেল (২০) ও হেলালকে (২৫) পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করে। মান্নানসহ আহতদের উদ্ধার করে রাতেই নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রাত সাড়ে ১০টার দিকে মান্নান চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। 

হামলাকারীরা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে ২ লাখ টাকা ও মালামাল লুট করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনার পর থেকে হামলার নেতৃত্বে দানকারী আওয়ামী লীগ নেতা ফজলুল হক ও তার ভাতিজা আইয়ুব আলী এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে।

চর জব্বার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজি নুরুল ইসলাম মানিক বলেন, নিহত ব্যক্তির সঙ্গে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হকের দীর্ঘদিনের বিরোধ ছিল। ওই বিরোধকে কেন্দ্র করে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় আব্দুল মান্নান নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন বলে শুনেছি।

চর জব্বার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা তরিকুল ইসলাম অভিযোগ করেছেন, হামলাকারী ফজলুল হক ও তার ভাতিজা  আইয়ুব আলী সরকার দলীয় সাইনবোর্ড ব্যবহার করে এলাকায় বিভিন্ন অপকর্ম করছেন। বুধবার রাতে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ঢুকে এক ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে। 

চর জব্বার থানার ওসি সাহেদ উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে চর জব্বার ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য বাহার, ইউছুফ ও আলাউদ্দিনকে আটক করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।