মহেশখালীতে ভূমিদস্যুর হামলায় আহত রেঞ্জ কর্মকর্তার মৃত্যু

প্রকাশ: ০৬ আগস্ট ২০২০     আপডেট: ০৬ আগস্ট ২০২০   

মহেশখালী (কক্সবাজার) প্রতিনিধি

সহকারী রেঞ্জ কর্মকর্তা ইউসুফ

সহকারী রেঞ্জ কর্মকর্তা ইউসুফ

কক্সবাজারের মহেশখালীর হোয়ানকে বন বিভাগের অবৈধ ভূমির দখল উচ্ছেদ করতে গিয়ে ভূমিদস্যুদের হামলায় আহত সহকারী রেঞ্জ কর্মকর্তা ইউসুফ উদ্দীন (৩০) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। এ ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ভোরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

নিহত ইউসুফ কুতুবদিয়া উপজেলার বড়ঘোপ মগডেইল এলাকার নেজাম উদ্দিনের ছেলে। 

মহেশখালীর রেঞ্জ অফিসার সুলতানুল আলম চৌধুরী বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, গত ৩০ জুলাই বন বিভাগের মহেশখালীস্থ সহকারী রেঞ্জ কর্মকর্তা ইউসুফের নেতৃত্বে বনকর্মীরা চট্টগ্রাম উপকূলীয় বন বিভাগের আওতাধীন মহেশখালী রেঞ্জের কেরুনতলী বিটের করইবুনিয়া নামক এলাকায় সংরক্ষিত বনাঞ্চলে অভিযান পরিচালনা করেন। এ সময় স্থানীয় ভূমিদস্যু কর্তৃক সরকারি জমি দখল করে নির্মাণ করতে যাওয়া অবৈধ পানের বরজ নির্মাণে বাধা দেন বনকর্মীরা।

অভিযান চলাকালীন ভূমি দস্যুরা জোটবদ্ধ হয়ে বন বিভাগের অভিযানিক দলের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এ হামলায় সহকারী রেঞ্জ কর্মকর্তা ইউসুফ গুরুতর আহত হন। এছাড়াও বিট কর্মকর্তা আহসানুল কবির (৪৫) ও নৌকাচালক জিয়া উদ্দীন (৩৫) আহত হন। গুরুতর আহত ইউসুফকে উদ্ধার করে স্থানীয় চিকিৎসা দিলেও শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে চমেক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে লাইফ সাপোর্টে ছিলেন ইউসুফ। 

ইউসুফের বড় ভাই মীর কাসেম উদ্দীন মিনহাজ তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ময়নাতদন্ত শেষে ইউসুফের মরদেহ কুতুবদিয়ায় পারিবারিক গোরস্থানে দাফন করা হবে।

হামলার ঘটনায় গত ৩১ জুলাই কেরুনতলী বিট কর্মকর্তা আহসানুল কবির বাদী হয়ে ভূমিদস্যুদের বিরদ্ধে মামলা করেন।

এদিকে, বনকর্মীদের হামলার পর ৩ আগস্ট ভূমিদস্যুরা বিট কর্মকর্তা আহসানুল কবির ও রেঞ্জ কর্মকর্তা সোলতানুল আলম চৌধুরীরকে টাকা দিয়ে তারা সরকারি জমিতে চাষাবাদ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এছাড়াও তাদের কারণে এমন হামলার ঘটনা ঘটেছে উল্লেখ করে তাদের অপসারণ ও বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ হয়েছে ওই এলাকায়। 

নিহত ইউসুফের ভাই মীর কাসেম উদ্দীন মিনহাজ অভিযোগ করেন, কেরুনতলী বিট কর্মর্কতা আহসানুল কবির  ও রেঞ্জ কর্মকর্তা সোলতানুল আলম চৌধুরীর কোন্দলের কারণে ভূমিদস্যু দিয়ে তার ভাইকে হত্যা করা হয়েছে। তারা এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেবেন।

মহেশখালীর রেঞ্জ অফিসার সুলতানুল আলম চৌধুরী জানান, ভূমিদস্যুদের হামলায় তার সহকর্মী মারা গেছেন। তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ ভিত্তিহীন। ভূমিদস্যুদের হামলার ঘটনা ভিন্নঘাতে নিতে এম বানোয়াট তথ্য ছড়ানো হচ্ছে। 

ঘটনার পর পরই বিট কর্মকর্তা আহসানুল কবিরকে সরিয়ে নতুন বিট কর্মকতা দেওয়া হয়েছে। 

মহেশখালী থানার ওসি দিদারুল ফেরদৌস বলেন, হামলা ও সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগে একটি মামলা হলেও যেহেতু আহত বন কর্মকর্তা মারা গেছেন সে হিসেবে মামলাটি হত্যা মামলা হিসেবে রূপান্তর হবে। এ ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, অন্যদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।