কিশোরগঞ্জে আরও ৫৪ জনের করোনা শনাক্ত

প্রকাশ: ০৬ জুন ২০২০   

কিশোরগঞ্জ অফিস

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

কিশোরগঞ্জে নতুন করে আরও ৫৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর ও ভৈরব উপজেলায় উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া দুই ব্যক্তি রয়েছেন। শনিবার সকালে তাদের নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়া গেছে। এ নিয়ে জেলায় আক্রান্ত হলেন মোট ৫৫৭ জন। এদিন করোনা আক্রান্ত থেকে ৩ জন সুস্থ হয়েছেন। এ নিয়ে মোট সুস্থ হলেন ২১৯ জন।

কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান শনিবার এ সব তথ্য জানান।

কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন কার্যালয় জানায়, জেলায় সর্বশেষ সংগৃহীত ১৪১ জনের নমুনা মহাখালীর ইনস্টিটিউট অব পাবলিক হেলথ (আইপিএইচ) এবং ১২০ জনের নমুনা কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষা করা হয়। দু’টি ল্যাবে ২৬১ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৫৪ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়।

নতুন শনাক্ত হওয়া ৫৪ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ১৭ জন, করিমগঞ্জ উপজেলার ৩ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলার ৩ জন, কটিয়াদী উপজেলার ৫ জন, কুলিয়ারচর উপজেলার ৩ জন, বাজিতপুর উপজেলার ৫ জন, অষ্টগ্রাম উপজেলার ১ জন এবং ভৈরব উপজেলার ১৭ জন রয়েছেন।

সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান জানান, বর্তমানে জেলায় মোট ৩২৬ জন করোনা রোগী রয়েছেন। তারা বিভিন্ন হাসপাতাল ও বাড়িতে আইসোলেশনে রয়েছেন। এদের মধ্যে ২ জন অন্য জেলা থেকে আসা।

তিনি আরও জানান, করোনায় আক্রান্ত হয়ে জেলায় এ পর্যন্ত মারা গেছেন ১৪ জন। এদের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ৩ জন, হোসেনপুর উপজেলার ১ জন, করিমগঞ্জ উপজেলার ২ জন, কটিয়াদী উপজেলার ১ জন, কুলিয়ারচর উপজেলার ১ জন, ভৈরব উপজেলার ৪ জন, বাজিতপুর উপজেলার ১ জন ও মিঠামইন উপজেলার ১ জন রয়েছেন।

এদিকে জেলায় দিনে দিনে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় উদ্বিগ্ন সচেতন মহল। এ জন্য দায়ী করা হচ্ছে মানুষের স্বাস্থ্যবিধি মেনে না চলাকে। 

স্থানীয় লেখক ফয়সাল আহমেদ বলেন, এলাকার হাট-বাজার ও শহরে অতিরিক্ত লোকসমাগমের কারণে প্রতিদিন রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। কেউ করোনাকালীন স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না।