সিরাজগঞ্জের অ্যাম্বুলেন্স রংপুরে, ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহারের অভিযোগ

প্রকাশ: ২৩ মে ২০২০     আপডেট: ২৩ মে ২০২০   

সিরাজগঞ্জ, তাড়াশ ও গোবিন্দগঞ্জ প্রতিনিধি

সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালের একটি অ্যাম্বুলেন্স (ঢাকা মেট্রো-ছ-৭১-২০৭৩) শুক্রবার রাত পৌনে ১২টার দিকে গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ থানার বগুড়া-রংপুর মহাসড়কে দুর্ঘটনায় পড়ে। 

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার সদরের মায়ামনি মোড়ে মহাসড়কে সওজের রেলিং-এর সাথে ধাক্কা খেয়ে অ্যাম্বুলেন্সটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়। এর চালক আব্দুল মোমিন আহত হন। গোবিন্দগঞ্জ হাইওয়ে থানা পুলিশ অ্যাম্বুলেন্সটি জব্দ করে।

অভিযোগ উঠেছে, তাড়াশ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জামাল মিয়া ব্যক্তিগত কাজে অ্যাম্বুলেন্সটি রংপুরে পাঠিয়েছিলেন। ফেরার পথে অ্যাম্বুলেন্সটি দুর্ঘটনায় পড়ে।  

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন বলেন, উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জামাল মিয়ার প্রাইভেটকারচালক নিরব হোসেন ও তার মাকে রংপুরে নিজেদের বাড়ি নামিয়ে দিয়ে আসার পথে দুর্ঘটনার কবলে পড়েন চালক আব্দুল মোমিনসহ অ্যাম্বুলেন্সটি। 

এমন অভিযোগের বিষয়ে জানতে শনিবার বিকেলে উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জামাল মিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, গাড়ি ছাড়াতে গোবিন্দগঞ্জ হাইওয়ে থানায় ঝামেলায় আছি। পরে কথা বলবো। 

এ দিকে শনিবার বিকেলে তাড়াশ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জামাল মিয়া নিজেই দুর্ঘটনা কবলিত অ্যাম্বুলেন্সটি ছাড়াতে গোবিন্দগঞ্জ হাইওয়ে থানায় যান। গাড়িটি ছাড়িয়ে নিয়ে মেরামতে দিয়ে আসেন। 

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দৃকত অ্যাম্বুলেন্সটি সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ পৌরসভায় দেয়া হয়েছিল। সিরাজগঞ্জ-৩ (রায়গঞ্জ ও তাড়াশ) আসনের সাংসদ অধ্যাপক ডা. আব্দুল আজিজ অ্যাম্বুলেন্সটি করোনা রোগী পরিবহনে সংগ্রহ করেন। ব্যক্তিগতভাবে তিনি রায়গঞ্জ পৌরসভা কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করে অ্যাম্বুলেন্সটি ধার নিয়ে তাড়াশ উপজেলা হাসপাতালে দেন। কিন্তু হঠাৎ কি কারণে অ্যাম্বুলেন্সটি রংপুরে গেলো, আর ফেরার পথে কেনই এটি গোবিন্দগঞ্জে দুর্ঘটনায় পড়লো, এ নিয়ে তাড়াশে নানা গুঞ্জন শুরু হয়েছে। এ দিকে, সাংসদ বিষয়টি খতিয়ে দেখবেন এবং সিভিল সার্জন ডা.  জাহিদুল ইসলাম দ্রুত বিষয়টির তদন্ত করবেন বলে জানিয়েছেন।

গোবিন্দগঞ্জ হাইওয়ে থানার ওসি আব্দুল কাদের জিলানী বলেন, দু’জন যাত্রী নিয়ে তাড়াশ থেকে অ্যাম্বুলেন্সটি শুক্রবার দুপুরে রংপুর যায়। রাতে ফেরার পথে বেপরোয়া চালিয়ে যাবার সময় গোবিন্দগঞ্জ মায়ামনি মোড়ে সওজের রেলিং-এর সাথে ধাক্কা খায়। চালক মদ্যপ ছিলেন কি-না, তা পরীক্ষা করা হয়নি। তাড়াশ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জামাল মিয়ার মাধ্যমে গাড়িটি পরে ছেড়ে দেয়া হয়। 

এ বিষয়ে সিভিল সার্জন ডা. জাহিদুল ইসলাম বলেন, করোনা আক্রান্ত রোগীকে রংপুরে রেফার্ড করা হয়। ফেরার পথে অ্যাম্বুলেন্সটি দুর্ঘটনার কবলে পড়ে বলে তাড়াশ উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা জানিয়েছেন। 

সাংসদ অধ্যাপক ডাঃ আব্দুল আজিজ বলেন, করোনার রোগী হলে সিরাজগঞ্জ জেলা সদরের বাগবাটির ৩১ শয্যা কোভিড-১৯ হাসপাতাল তাকে প্রাথমিকভাবে ভর্তি হতে হবে। জটিল হলে তাকে ঢাকায় রেফার্ড করা হবে। রংপুরে রেফার্ডের বিষয় বোধগম্য নয়। আমি নিজেও চিকিৎসক। বিষয়টি আমি নিজেও জানার চেষ্টা করবো।