ভাঙ্গায় মাকে পিটুনি, ছেলেকে কুপিয়ে জখম

প্রকাশ: ২৬ মার্চ ২০২০     আপডেট: ২৬ মার্চ ২০২০   

ভাঙ্গা (ফরিদপুর) প্রতিনিধি

আহত মা-ছেলে

আহত মা-ছেলে

ফরিদপুরের ভাঙ্গায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক শিক্ষককে কুপিয়ে জখম ও তার মাকে পিটিয়ে আহত করা হয়েছে। উপজেলার আজিমনগর ইউনিয়নের পশ্চিম পাতরাইল গ্রামে জমি নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে রোববার ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আহাদ ফকির এই হামলা চালান বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

আহতদের ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এ ব্যপারে ভাঙ্গা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, পাতরাইল গ্রামের প্রয়াত এসকেনদার ফকিরের ছেলে প্রাথমিক সরকারি স্কুলের শিক্ষক রোকনুজ্জামানের সঙ্গে ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য আহাদ ফকিরের জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলছিল। রোববার রোকনুজ্জামানের বাড়ির পুকুরে আহাদ ফকিরসহ আরও কয়েকজন জাল দিয়ে মাছ ধরতে আসলে রোকনুজ্জামানের মা করিমন নেছা তাদের মাছ ধরতে নিষেধ করেন। এতে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে করিমন নেছাকে গালিগালাজ করে একপর্যায়ে মারপিট শুরু করেন।

মায়ের চিৎকারে রোকনুজ্জামান এগিয়ে আসলে ইউপি সদস্য ও তার সঙ্গে থাকা ব্যক্তিরা তাকেও মারপিট করেন এবং ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করেন।

প্রতিবেশিরা এগিয়ে আসলে মা-ছেলেকে হুমকি দিয়ে চলে যান। স্থানীয়রা মা-ছেলেকে আহত ও রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

আজিমনগর ইউনিয়ন পরিষদের ৫নম্বর ওয়ার্ড সদস্য আহাদ ফকির বলেন, আমরা তাদের সংঘবদ্ধভাবে মারিনি। কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে তাদের সঙ্গে ধস্তাধস্তি হয়েছে।

এ বিষয়ে ভাঙ্গা থানার ওসি মো. শফিকুর রহমান জানান, ভাঙ্গা থানায় একটি অভিযোগ এসেছে। তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।