পাবনা জেলার ব্যস্ততম জায়গা কাশীনাথপুর চৌরাস্তা। এই স্থান দিয়ে প্রতিদিন পাবনা শহর, রাজশাহী, ঢাকা, বগুড়াসহ বিভিন্ন জায়গার প্রায় অর্ধলক্ষ মানুষের চলাচল।

কয়েকদিন আগেও সাঁথিয়া উপজেলার এই রাস্তার পাশ দিয়ে অবৈধ বাজার, দোকানপাট, হোটেল, দোকানীদের নানা পসরা ও মানুষের ভীড়ে ঠাসা ছিল। সড়ক বিভাগের জমি অবৈধভাবে দখল করে গড়ে তোলা হয়েছিল এ সব  স্থাপনা। 

এ কারণে যাত্রী সাধারণ, স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীসহ সাধারণ মানুষের চলাচলে যানজট ছিল নিত্যসঙ্গী। কিন্তু এখন বদলে গেছে সেখানকার দৃশ্যপট। সে জায়গায় এখন স্থান পেয়েছে ফুলগাছসহ নানা ধরনের ফলজ ও বনজ গাছের বাগান। 

অবৈধ জায়গা উচ্ছেদ অভিযান শেষে আবার যেন বাজার বসাতে না পারে সে জন্য ঐ সব জায়গা গ্রিল দিয়ে ঘেরাও করে সেখানে লাগানো হয়েছে নানা ধরনের ফুলের চারা। এতে যানজট মুক্ত হওয়ায় ঐ এলাকার সাধারণ মানুষজন খুব খুশি।  

সড়ক বিভাগ সূত্র জানায়, পাবনা জেলার কাশীনাথপুর, বেড়া বাজার, শহরের উভয়পার্শ্বে এবং দাশুড়িয়া মোড়সহ বিভিন্ন স্থানে অবৈধ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় ৭৬১ টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে সরকারের ২৭ দশমিক ৮৫ একর মুল্যবান সম্পত্তি উদ্ধার করা হয়েছে। যার আনুমানিক বাজার মূল্য ২৩৬ কোটি টাকা।  

কাশীনাথপুরের স্কাইলার্ক স্কুলের ছাত্রী আখি খাতুন বলেন, আগে ট্রাফিক জ্যামের কারণে স্কুলে যেতে দেরী হত। এখন স্কুলের সামনে কোন যানজট নেই। 

বাস চালক সুবহান বলেন, আগে এ সব দোকানপাটের জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা রাস্তায় বাস দাঁড় করিয়ে রাখতে হত। 

উচ্ছেদ শেষে সড়ক বিভাগের তৈরি বাগান

পাবনার চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রির সভাপতি সাইফুল ইসলাম চৌধুরী স্বপন সমকালকে বলেন, সড়ক  বিভাগের এই উচ্ছেদ অভিযান খুব প্রয়োজন ছিল। উদ্ধারকৃত জায়গায় ফুল বাগান করার কারণে ওই এলাকার সৌন্দর্য অনেক বেড়ে গেছে। 

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) পাবনা জেলা শাখার সভাপতি আব্দুল হামিদ খান জানান, এ ধরনের উদ্যোগ শহরের জন্য পরিবেশ বান্ধব। এই উদ্যোগকে সবার সহায়তা করা দরকার।   

সড়ক বিভাগ পাবনার নির্বাহী প্রকৌশলী সমীরণ রায় সমকালকে জানান, এক শ্রেণির মানুষ সড়ক বিভাগের জায়গা অবৈধ দখল করে সেখানে খাবার হোটেল, বাজারসহ নানা দোকানপাট তৈরি করেছিল। ফলে যানজটের কারণে মানুষজন অতিষ্ট ছিল।  

তিনি আরও বলেন, উচ্ছেদকৃত জমিতে আবারও যদি কে্উ অবৈধভাবে দখল করতে যায় তা হলে শুধু উচ্ছেদ নয়, তাদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা করা হবে।