সরকারি কর্মকর্তাদের খাদ্য উৎপাদনে উৎসাহিত করতে সপ্তাহে একদিন অতিরিক্ত ছুটির ঘোষণা করেছে শ্রীলঙ্কান সরকার। সেই হিসেবে সরকারি খাতের কর্মীদের সাপ্তাহিক কর্মদিবস চার দিন করা হচ্ছে। দেশটিতে চলমান জ্বালানি ঘাটতি  এবং খাদ্য সঙ্কট মোকাবিলায় ফসল উৎপাদনে তাদের উৎসাহিত করতে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার শ্রীলঙ্কান সরকার এই ঘোষণা দিয়েছে। বিবিসি প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে।

ওই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, ২ কোটি ২০ লাখ জনগণের দেশ শ্রীলঙ্কা ৭০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ অর্থনৈতিক সঙ্কটে রয়েছে । দেশটির সরকারি খাতে প্রায় দশ লাখ কর্মী রয়েছে। দেশটিতে বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। এ কারণে গুরুত্বপূর্ণ জ্বালানি, খাদ্য ও ওষুধ আমদানির মূল্য পরিশোধ করতে পারছে না দ্বীপ রাষ্ট্রটি।

এর আগে সোমবার শ্রীলঙ্কার মন্ত্রিসভা সরকারি খাতে আগামী তিন মাস শুক্রবার ছুটির দিন ঘোষণার প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে। মূলত জ্বালানির ঘাটতির কারণে পরিবহন কষ্টসাধ্য হওয়া এবং কৃষি কাজে উৎসাহিত করতে এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

সরকারের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, সরকারি কর্মীদের অতিরিক্ত একদিন ছুটি দেওয়া যৌক্তিক মনে হয়েছে। কর্মীরা ভবিষ্যতের খাদ্য ঘাটতির সমাধান হিসেবে সবাই নিজেদের আঙ্গিনায় বা অন্যত্র কৃষিকাজে জড়িত হতে পারেন।

শ্রীলঙ্কার রুপির ধারাবাহিক দরপতন, বিশ্বব্যাপী দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি এবং রাসায়নিক সারের উপর নিষেধাজ্ঞা (যা এখন প্রত্যাহার করা হয়েছে ) দেশটিতে এপ্রিলে খাদ্যে মূল্যস্ফীতি বেড়ে দাঁড়ায় ৫৭ শতাংশ।

গত মাসের শেষের দিকে, দেশটির কৃষিমন্ত্রী মাহিন্দা আমরাবিরা কৃষকদের আরও ধান চাষের আহ্বান জানিয়ে বলেছিলেন, 'এটা স্পষ্ট যে খাদ্য পরিস্থিতি আরও খারাপ হচ্ছে'।

সঙ্কট কাটাতে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)-এর সঙ্গে একটি ঋণ প্যাকেজ নিয়ে আলোচনা করছে শ্রীলঙ্কান সরকার। আগামী ২০ জুন আইএমএফ প্রতিনিধিদল দেশটির রাজধানী কলম্বোতে আসবে বলে আশা করা হচ্ছে।