তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান এমপিকে মন্ত্রিসভা থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদত্যাগের নির্দেশ দেয়ার খবরে তার নির্বাচনী এলাকা জামালপুরের সরিষাবাড়ী ও জেলা শহরে আনন্দ মিছিল করেছে আওয়ামী লীগসহ অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) দুপুর ১২টার দিকে জামালপুর জেলা শহরে আওয়ামী লীগ মিছিল বের করে। জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের সামনে সংক্ষিপ্ত সভা করা হয়।

সকালে সরিষাবাড়ী উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আল-আমিন হোসাইন শিবলুর নেতৃত্বে একটি আনন্দ মিছিল আরামনগর বাজার ট্রাক মালিক সমিতির মোড় থেকে শুরু করে উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের সামনে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা করা হয়।এসময় বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা মুরাদ হাসানের কুশপুত্তলিকা দাহ করে।

একই সময় পৌর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মঞ্জুরুল ইসলাম বিদ্যুতের নেতৃত্বে শিমলা বাজার থেকে আনন্দ মিছিল বের হয়। মিছিলটি আরডিএম স্কুল রোড ও বাস টার্মিনাল সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে বঙ্গবন্ধু চত্বরে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা করা হয়। এর আগে সোমবার (৬ ডিসেম্বর) রাতে তারাকান্দি শহীদ মিনার চত্বরে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রফিকুল ইসলামের কর্মী-সমর্থকরা আনন্দ মিছিল বের করেন।

এদিকে ঘোষণাটি এলাকায় প্রচার হওয়ার পরপরই মুরাদ হাসানের কর্মী-সমর্থকরা এলাকা ছেড়ে গা ঢাকা দিয়েছে। উপজেলার বিভিন্নস্থানে লোকজন পটকা ফুটিয়ে উল্লাস প্রকাশ করে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও রীতিমতে নানা প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। সাধারণ মানুষের পাশাপাশি আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাও আনন্দ প্রকাশ করছেন ফেসবুকে।

উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আল আমিন হোসাইন শিবলু এক প্রতিক্রিয়ায় জানান, মুরাদ হাসান মন্ত্রণালয়ের দাপটে এলাকায় দলীয় নেতাকর্মীদের নির্যাতন করেছে। তার নানা অপকর্মে আমরা লজ্জিত ছিলাম। প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে আনন্দ মিছিলের আয়োজন করেছি।

সরিষাবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ ছানোয়ার হোসেন বাদশা বলেন, এই তথ্যপ্রযুক্তির যুগে একজন তথ্য প্রতিমন্ত্রী যেভাবে অশ্রাব্য ভাষায় কথা বলে, তা দলের জন্য সত্যিই লজ্জাজনক। প্রধানমন্ত্রী যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তাকে আমরা স্বাগত জানাই। আনন্দ মিছিল মানুষের দীর্ঘদিনের অভিব্যক্তির বহিঃপ্রকাশ বলেও তিনি জানান।