টেকনাফের জাহাজপুরা এলাকায় বঙ্গোসাগরে হেলাল উদ্দিনের জালে আটকা পড়েছে ৯০টি লাল কোরাল। পরে টেকনাফ বাহারছড়া ইউনিয়নের জাহাজপুরা ঘাটে তোলা হয়। সেখানেই তিন লাখ টাকা মূল্যে মাছগুলো কিনে নেন মাছ ব্যবসায়ীরা।

মাছ ব্যবসায়ী আব্দুল কাদের সমকালকে জানান, মঙ্গলবার ভোর ৫ টার দিকে বঙ্গোপসাগরের জাহাজপুরা মাছের ঘাটে হেলাল উদ্দিনের ছোট নৌকা নিয়ে সাগরে মাছ শিকারে রওনা দেন আবদুল করিম মাঝি। জালে মাছ উঠলে জেলেরা পরে নৌকায় জাল তুলে দেখেন ধরা পড়েছে সামুদ্রিক লাল কোরাল। এই মাছগুলো স্থানীয়ভাবে রাঙ্গা চৈ নামে পরিচিতি। পরে এসব মাছ কূলে উঠিয়ে আনা হয়।

স্থানীয় মাছ ব্যবসারী জাহাজপুরা ঘাটেই তিন লাখ টাকায় সামুদ্রিক কোরাল মাছগুলো কিনে নেন। 

বাহারছড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজ উদ্দিন বলেন, ‘জাহাজপুরা হেলাল উদ্দিনের জালে ৯০টি লাল কোরাল ধরা পড়েছে। ভোরে জেলেদের হৈচৈ শুনে খবর নিয়ে জানতে পারলাম মাছগুলো তিন লাখ টাকায় বিক্রি হয়েছে।’

এক সপ্তাহ আগে সেন্টমার্টিন এক জালে ধরা পড়েছিল ১০৩টি লাল কোরাল, যা ছয় লাখ টাকায় বিক্রি হয়।