সুহৃদ সমাবেশ

সুহৃদ সমাবেশ


২০০ বান্ডিল টিন ও খাদ্য সহায়তা প্রদান

সাতক্ষীরায় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে আমরা

প্রকাশ: ০২ জুন ২০২০      

এম কামরুজ্জামান ও সামিউল মনির

 সাতক্ষীরায় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে আমরা

সাতক্ষীরার বুড়িগোয়ালিনীতে ঘূর্ণিঝড় আম্পানে গৃহহীন ১০০ পরিবারে ২০০ বান্ডিল টিন ও খাদ্যসামগ্রী তুলে দিচ্ছেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) আব্দুল হাই সিদ্দিকী

সুপার সাইক্লোন আম্পানে সাতক্ষীরা উপকূল লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে। বিশেষ করে শ্যামনগর উপজেলার সুন্দরবন সংলগ্ন বিস্তীর্ণ এলাকা এবং আশাশুনি উপজেলার প্রতাপনগর, শ্রীউলা, খাজরাসহ কয়েকটি ইউনিয়ন বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এসব এলাকা বানের পানিতে একাকার। জোয়ার-ভাটার সঙ্গে কয়েক লাখ মানুষ যুদ্ধ করছে। নদীর স্রোতে অনেক এলাকার বাড়িঘর নদীতে ভেঙে পড়েছে।

এই মহাদুর্যোগে সমকাল সুহৃদ সমাবেশ ও আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। গত ২৩ মে সমকাল সুহৃদ সমাবেশ ও আল-খায়ের ফাউন্ডেশন সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার সুন্দরবন সংলগ্ন বুড়িগোয়ালিনী ও গাবুরা ইউনিয়নের ১০০ ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে ঢেউটিন ও খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছে। ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিটি পরিবারকে দুই বান্ডিল ঢেউটিন দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া প্রত্যেক পরিবারকে চাল, ডাল, আলু, মুড়ি, গুড়, বিস্কুট ও চিড়া দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া শতাধিক ক্ষুধার্ত মানুষকে দুপুরে রান্না করা খাবার দেওয়া হয়। সমকাল সুহৃদ সমাবেশ ও আল-খায়ের ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে দেওয়া টিন ঘুরে দাঁড়ানোর স্বপ্ন দেখাল উপকূলবর্তী অসহায় মানুষকে।

টিন আর খাদ্যসামগ্রী পেয়ে বেজায় খুশি দাতিনাখালী গ্রামের লাইলা বিবি (৬৫)। তিনি বলেন, করোনা আর আম্পান ঈদের কথা ভুলিয়ে দিল। তবে ঘরবাড়ি ভেসে যাওয়ার তিন দিনের মাথায় এসব উপহার পেয়ে সেই ঈদের কথাই মনে পড়ছে।

টিনগুলো অনেক মজবুত হওয়ায় অনায়াসে ৬০-৭০ বছর যাবে উল্লেখ করে একই গ্রামের বৃদ্ধ আব্দুল মাজেদ জানান, 'বছর বছর বাঁধ না ভাঙলি নাতিপুতি পর্যন্ত এ ঘরে বাস করে যাতি পারবে। ভাঙনের পর থেকে আশ্রয়হীন হলেও নতুন টিন দিয়ে ঘর বেঁধে আবারও বসতভিটায় ফেরার সুযোগ হয়েছে। শুধু লাইলা আর আব্দুল মাজেদ নন, সমকাল সুহৃদ সমাবেশ ও আল-খায়ের ফাউন্ডেশনের দেওয়া ত্রাণসামগ্রী পেয়ে রীতিমতো আপ্লুত আম্পানে বিধ্বস্ত উপকূলবর্তী শ্যামনগরের ১০০ পরিবার।

ঘর বাঁধার জন্য টিনের পাশাপাশি খাদ্যসামগ্রী পেয়ে যারপরনাই খুশি সুবিধাভোগী এসব পরিবারের নানা বয়সী সদস্য। আম্পান আঘাতের পর থেকে সরকারের তরফ থেকে দেওয়া খাদ্যসামগ্রী খেয়ে কোনো রকমে দিন পার করছেন বলে জানান তারা। টিনের সঙ্গে দেওয়া চাল, ডাল, চিড়া, গুড়, বিস্কুট আর মুড়ি, চিনি ঈদের দিনটা অন্তত খুশিতে পার করে দেবে বলেও দাবি তাদের।

দাতিনাখালী গ্রামের বিধবা জহুরা বেগম বলেন, 'বুধবার রাতে বান ডাকার পর জীবনের মায়া ছেড়ে দেলাম। টানা তিন দিন ভিটেমাটি ছেড়ে রাস্তা আর সাইক্লোন শেল্টারে কাটাচ্ছি। তোমাগো টিন পেয়ে বসতভিটেতে ফেরার মন চাচ্ছে। তবে তোমরা যদি সরকারের বলে বাঁধটা বেঁধে দেও, তবে ত্রাণ পাওয়ার চেয়ে বেশি খুশি হতাম।' বলেই অঝোরে কাঁদতে শুরু করেন ষাটোর্ধ্ব ওই বাঘ বিধবা।

পাশে দাঁড়ানো পূর্ব দুর্গাবাটি গ্রামের হামিদা বেগম বলেন, 'আম্পানের পর এত তাড়াতাড়ি ঘর বানতি পারবো, কল্পনা করিনি। আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ও সমকাল সুহৃদ সমাবেশের উপহার আমাগো কষ্ট কিছুটা কমিয়ে দেছে।'

সমকাল সুহৃদ সমাবেশ ও আল-খায়ের ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে সুপার সাইক্লোন আম্পানের আঘাতে লণ্ডভণ্ড উপকূলবর্তী শ্যামনগর উপজেলার ১০০ পরিবারের হাতে টিনসহ ত্রাণসামগ্রী তুলে দেওয়া হয়েছে। গত ২৩ মে সকাল ১১টায় বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে সামাজিক দূরত্ব মেনে তুলে দেওয়া হয় এসব সহায়তা। আল-খায়ের ফাউন্ডেশনের বাংলাদেশ কান্ট্রি ডিরেক্টর তারেক মাহমুদের সভাপতিত্বে টিন ও ত্রাণসামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন শ্যামনগর উপজেলা প্রশাসনের প্রতিনিধি সহকারী কমিশনার (ভূমি) আব্দুল হাই সিদ্দিকী।

ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধনকালে আব্দুল হাই সিদ্দিকী বলেন, সমকাল ও আল-খায়ের ফাউন্ডেশন দেখিয়ে দিয়েছে কীভাবে দুর্যোগকবলিত মানুষের পাশে দাঁড়াতে হয়। মানুষ মানুষের জন্য প্রবাদের সার্থক সমন্বয় ঘটিয়ে তারা প্রমাণ করেছে, ইচ্ছাশক্তিই মূল। মাত্র তিন দিনের মধ্যে চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত সুন্দরবন তীরবর্তী উপকূলীয় জনপদ শ্যামনগরের দুর্গতদের পাশে দাঁড়ানোয় তিনি সমকাল ও আল-খায়ের ফাউন্ডেশনের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সমকালের সাতক্ষীরা জেলা প্রতিনিধি এম কামরুজ্জামান, শ্যামনগর সংবাদদাতা সামিউল মনির, বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুল রউফ, সিডিইও ইয়ুথ টিমের পরিচালক ইমরান হোসেন, ইউপি সদস্য আবেদুর রহমান, সংবাদকর্মী বিলাল হোসেন, আব্দুল হালিম প্রমুখ।

এদিকে, গত ২৭ মে সাতক্ষীরা সদর, আশাশুনি ও তালা উপজেলায় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত আরও ৪৭টি পরিবারকে সমকাল সুহৃদ সমাবেশ ও আল-খায়ের ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে খাদ্য সহায়তা দেওয়া হয়েছে।