ঘাস ফড়িং

ঘাস ফড়িং

গল্প

জুনায়রার অনেক বুদ্ধি

প্রকাশ: ২৮ জুলাই ২০২০

নুসাইবা মুশতাহিরা

গত ঈদ বাসায় কেটেছে জুনায়রা। তাও চার দেয়ালে। দেশের অবস্থা ভালো না। সবাই তো ঘরবন্দি। তাই ঈদের আনন্দও ছিলো ঘরবন্দি। এই ঈদে গ্রামে যেতে চায় জুনায়রা। দাদু বাড়িতে। কিন্তু বাবা বলেন, 'বাসায় ঈদ করো। গ্রামে যেতে হবে না। পরিস্থিতি ভালো না।' জুনায়রার মন খারাপ হয়। কিন্তু সে জানে, পরিস্থিতি আসলেই ভালো না। শুধু বাংলাদেশ নয়, পৃথিবী ভালো নেই। তবে জুনায়রা যেতে চায় একটা কারণে। তা হচ্ছে জামা বিলিয়ে দেওয়া। জুনায়রা প্রতি ঈদে তার বাবাকে দিয়ে তিনটা অতিরিক্ত জামা কেনায়। এবারও কিনিয়েছে। তবে এই প্রথম সে বাবাকে দিয়ে অনলাইনে জামা কিনিয়েছে। এক দুপুরে অনলাইনে কেনা জামা বাবার অফিসে ডেলিভারি দেওয়া হয়। বাবা বাসায় ফেরার সময় নিয়ে আসেন। জামার সেই প্যাকেট দুদিন পর খুললো জুনায়রা। তারপর সব দেখে শুনে তার মতো করে আলাদা প্যাকেট করলো। একেকটা প্যাকেট একেক রঙের। তার তখন মন ভালো থাকলেও এখন সে খুব চিন্তিত। আসলে সে বাড়ি যেতে পারবে কিনা এখনও জানে না। বাড়ি যেতে না পারলে দাদুবাড়ির যাদের জন্য সে জামাগুলো কিনেছে তাদের কীভাবে পাঠাবে? তবে জুনায়রার মাথায় একটা বুদ্ধি এসেছে, সে যদি বাড়ি যেতে না পারে তবে সে কুরিয়ার করে জামাগুলো বাড়ি পাঠিয়ে দেবে। এতে করে যাদের জন্য জামা কেনা হয়েছে তারা তো অন্তত খুশি হবে।

বয়স : ২+৩+৩+৪ বছর; ষষ্ঠ শ্রেণি, ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ঢাকা