ঘাস ফড়িং

ঘাস ফড়িং

ছড়া-কবিতা

আত্মভোলা ছেলে

প্রকাশ: ১৪ জুলাই ২০২০

উ ৎ প ল কা ন্তি ব ড়ু য়া

বাবা দিলেন গুড় আনতে নুরুর দোকান থেকে
চলে গেলাম বামে যেদিক পথটা গেছে বেঁকে।
সেই না দিকের নদীপাড়ের হাওয়া গায়ে মাখি
সবাই বলে আমি ভীষণ আত্মভোলা নাকি!

যাচ্ছি মাঠে খেলতে, গেলাম পুকুর ঘাটে নেমে
চলতে গিয়ে দাঁড়িয়ে পড়ি পথের মাঝে থেমে
উল্টো পরি প্যান্টটা, গায়ে শার্টের বোতাম খোলা
সবাই বলে, ছেলে আমি ভীষণ আত্মভোলা।

দরজা বেঁধে দিতে বললে জানালা দেই খুলে
জানি না ক্যান এমন করে মাথাটা যায় গুলে!
ময়লাসহ ভালো বালতি ডাস্টবিনে দেই ফেলে
মাও বলেন আমি নাকি আত্মভোলা ছেলে।

করবোটা কী মাথায় আমার চিন্তা জাগে ভারি
সবুজ খেলার মাঠ, তাতে ক্যান পাকা দালান বাড়ি?
পুকুর ভরাট করলো কেনো দেয় না জবাব কেউ
নাচতো হাওয়ার তালে তালে সেই পুকুরের ঢেউ!

নদীর এতো জল ঘোলা ক্যান লাফায় না ক্যান মাছ
ফেললো কেটে কেনো মোড়ের বুড়ো বটের গাছ?
এসব ভেবেই আনমনা হই, সবাই আমায় বকে
আচ্ছা বলুন, আমি কি হই আত্মভোলা শখে।