ঘাস ফড়িং

ঘাস ফড়িং


হাম্বা ডাকা গরুর কাজ!

প্রকাশ: ২০ আগস্ট ২০১৯      
প্রাণী ও পতঙ্গের কিছু মজার এবং আজব সত্য তথ্য তোমাদের সামনে হাজির করলেন মোহসেনা জয়া

হ একেক দেশের মানুষের মুখের ভাষা একেক রকম। এমনকি একেক রকম তাদের উচ্চারণভঙ্গিও। সে কথা তো তোমরা জানোই। মানুষ কথা বলতে পারে বলে তাদের ভাষা ও উচ্চারণ এমন আলাদা হয়। কিন্তু গরু তো আর কথা বলতে পারে না। গরু পারে শুধু 'হাম্বা' বলতে। তাই বলে ভেবো না পৃথিবীর সব গরুই একই রকম করে হাম্বা ডাকে। একেক দেশের গরুর এই 'হাম্বা' উচ্চারণ কিন্তু একেক রকম! বিজ্ঞানীরা গবেষণা করে এই তথ্য বের করেছেন।

হ আমাদের হাত আছে বলে খুব সহজেই আমরা কান পরিস্কার করতে পারি। কিন্তু বেচারা জিরাফের যদি কান পরিস্কার করার দরকার হয়, তখন সে কী করে, জানো নাকি? কী আর করবে! নিজের ২১ ইঞ্চি লম্বা কান দিয়েই জিরাফ তার কান পরিস্কার করে।

হ উটপাখির ক্ষুদ্রান্তের দৈর্ঘ্য জানো? খুব বেশি না, মাত্র ৪৬ ফুট!

হ অনেককিছুরই তো ঘ্রাণ পাও তুমি। এই ধরো ফুল, বিস্কুট, আরও কতো কী! জানো নাকি, হাতি তিন মাইল দূর থেকে পানির গন্ধ পায়!

হ কতদিনের পুরনো কথা তুমি মনে রাখতে পারো? অনেকদিনেরই তো, তাই না? একটা গোল্ডফিশের স্মৃতির আয়ু কতক্ষণ, জানো? তিন সেকেন্ড!

হ হামিংবার্ড পাখি খুব ছোট, সে কথা হয়তো জানো তুমি? কিন্তু জানো কি, একটা হামিংবার্ডের ওজন কতোটুকু? একটা পয়সার চেয়েও কম!

হ আমরা তো চাইলেই উল্টো পায়ে পেছন দিকে একটু হাঁটতে পারি, তাই না? ক্যাঙ্গারু আর ইমু নামে দু'টি প্রাণী আছে, ওরা পেছন দিকে একটুও হাঁটতে পারে না।

হ ধরো, খুব ক্ষুধা লেগেছে তোমার। বসে বসে খাচ্ছিলে কিছু। এমন সময় ফুরফুরে প্রজাপতিকে উড়ে যেতে দেখলে তুমি নিশ্চয়ই আনন্দে হাততালি দিয়ে ওঠো। তুমি কি জানো, কেমন করে প্রজাপতি নেয় খাবারের স্বাদ? খাওয়ার আগে ওরা বসে যায় খাবারের উপর। কারণ মানুষের যেমন স্বাদগ্রন্থিগুলো জিহ্বায় থাকে, তেমনি ওদের থাকে পায়ে।

হ না ঘুরে যদি পেছনের কোনোকিছু দেখতে চাও, তুমি নিশ্চয়ই ঝটপট করে ঘুরিয়ে ফেলো ঘাড়? জানো, তুলতুলে প্রাণী খরগোশ ও আদুরে পাখি টিয়া ঘাড় না বাঁকিয়ে পেছনটা দেখতে পায়!

হ মাঝেমধ্যেই তো হাঁচি পায় আমাদের, তাই না? ভেবে দেখেছো, হাঁচি দেওয়ার সময় আপনাআপনিই চোখ দু'টো কেমন বন্ধ হয়ে যায়! চোখ খোলা রেখে হাঁচি দেওয়ার চেষ্টা করে দেখো তো। অসম্ভব, পারবে না।

হ পিপাসা পেলে আমরা তো ঢকঢক করে পানি গিলি, মানে পান করি। ব্যাঙেরও তো পিপাসা লাগে। তাই বলে ওরা কিন্তু পানি পান করে না। বরং চামড়া দিয়ে শুষে নেয়।

হ একটা হাতি একদিনে কতটুকু পানি পান করে জানো? এই ধরো ২১০ লিটার তো হবেই!