হালুম ও ডোরাকাটা

প্রকাশ: ২০ আগস্ট ২০১৯      

নুজাইমা মুশতানিরা

দুই বাঘছানা হালুম ও ডোরাকাটা। খুব ভালো বন্ধু। খাওয়া-নাওয়া, খেলাপড়া সব একসঙ্গে চলে। দুষ্টুমিতেও দু'জন সমান। একজন আরেকজনকে ভড়কে দেওয়ার জন্য যা করা দরকার তা-ই করে। একবার ভীষণ গরমে দু'জনের মাথা ফেটে যাচ্ছে। বাড়ির পাশেই বড় একটি নদী, নাম পদ্মঝিল। দু'জনই খুব ভালো সাঁতার জানে, চোখ বন্ধ করে ঝাঁপিয়ে পড়লো ঠাণ্ডা পানিতে। ঠাণ্ডা পানির ছোঁয়ায় প্রথম চোখ খুললো ডোরাকাটা। খুলেই চিৎকার, 'কোথায় এলেম আমরা!' হালুম চোখ খুলে দেখে, ওমা! আকাশি নীল পানি, সাদা ঢেউয়ে রঙিন মাছ ভেসে যাচ্ছে, মাঝির নৌকায় বৌ-জামাই টুকটুকে লাল শাড়ি পরা। নদীর তীরে তাদের স্বপ্নের রঙিন মানিকখচিত মাধব রাজার রাজপ্রাসাদ। জানালা দিয়ে মুকুট পরা রানীকে দেখা যাচ্ছে। পুকুরের ধারে শান বাঁধানো। সবুজে ভরে গেছে চারদিক। নীল উজ্জ্বল আকাশ, কমলা সূর্য, গোল গোল সাদা মেঘ। হালুম-ডোরাকাটা ভয়ে ও আনন্দে চোখ বন্ধ করে ফেললো। চোখ খুলে ওদের দম আটকে গেলো। আবার তারা নদীতে চলে এসেছে! তাহলে কি তারা এতোক্ষণ স্বপ্ন দেখছিল? কিন্তু তাদের হাতে থাকা মাধব রাজার দেওয়া ঝুড়িভর্তি হীরে-চুনি-পান্নাই প্রমাণ করছে, তারা সত্যিই ভিনদেশে গিয়েছিলো। না হলে এই মানিক আসবে কোথা থেকে?

[বয়স : ৪+৪+৩+২ বছর; সপ্তম শ্রেণি, ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ, বেইলি রোড, ঢাকা]

পরবর্তী খবর পড়ুন : হাম্বা ডাকা গরুর কাজ!

অন্যান্য