দূর্বাঘাসে ডিগবাজি খায় দুষ্টু সে এক ছেলে

প্রকাশ: ০৬ আগস্ট ২০১৯      
জ সী ম মে হ বু ব

আনন্দে তাই ভাসি



দূর্বাঘাসে ডিগবাজি খায় দুষ্টু সে এক ছেলে,

ছুটছে একা ইচ্ছেমতো খুশির ডানা মেলে।

লাফিয়ে পড়ে নদীর জলে নেই কোনো ভয়-ডর,

কেউ কি জানো কোথায় নিবাস কোথায় ছেলের ঘর?

দুই চোখে তার আলোর ঝিলিক বুকে সাহস-বল,

আচমকা সে হেসে ওঠে আনন্দে ঝলমল।

তার গায়ে এক ছেঁড়া জামা প্যান্টে তালি দুটো,

সারা গায়ে লেপ্টে আছে ময়লা ও খড়কুটো।

যেই না তাকে প্রশ্ন করি, কী গো আপনভোলা?

কোন খুশিতে লাফাও, বুকের বোতাম কেন খোলা ?

অবাক করা উত্তরে তার তাকাই চোখে-মুখে,

এমন খুশির বার্তা আমি খাতায় নিলাম টুকে।

জানালো সে, দূর আকাশে বাঁকা চাঁদের হাসি,

ঈদের খবর আনলো বয়ে, আনন্দে তাই ভাসি।





মা হ ফু জা ম তি জে রি ন

ভেবে ভেবে ঘুম



ঈদের চাঁদে জুড়ায় নয়ন

প্রাণে খুশির বান

রাত ফুরাতে ভীষণ দেরি

মন করে আনচান।

কখন হবে ঈদের সকাল

ভেবে ভেবে ঘুম

ভোরবেলাতে কপালে পাই

মায়ের সোহাগ চুম।



সৈ য় দা মা ই দু ন নে ছা

ফুচকা কিনে খাই



ঈদ এসেছে, ঈদ এসেছে

ঈদ এসছে ভাই,

কিন্তু আমার ঈদের কোনো

জামা-কাপড় নাই!



গত বারের ঈদের জামা

রেখেছি ব্যাগে ভরে,

ইঁদুর বেটা কেটে সেটা

দিয়েছে নষ্ট করে।



ভেবে নিলাম, খালি গায়েই

যাব ঈদের মাঠে

কত টোকাই খালি গায়েই

হাঁটছে রাস্তা ঘাটে!



নাই বা পেলাম জুতো জামা

গোস্ত পোলাও ভাই

সবাই মিলে চল মাঠে

ফুচকা কিনে খাই!

পরবর্তী খবর পড়ুন : ঈদ সকালের অপেক্ষা

অন্যান্য