দিন রাত্রি

দিন রাত্রি


অদ্ভুতুড়ে মহামারি ড্যান্সিং প্লেগ!

প্রকাশ: ২৭ জুন ২০২০      

আকেল হায়দার

ঘটনাটি অবিশ্বাস্য ও বিস্ময়কর শোনালেও সত্যি যে, ১৫১৮ সালে ফ্রান্সের স্ট্রসবার্গ শহরের বাসিন্দারা আকস্মিকভাবে এক সকালে নিয়ন্ত্রণহীন এক অদ্ভুত খিঁচুনি নাচ প্রদর্শনের মতো বিরল এক অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হন। সেই বছরের জুলাই মাসে ফ্রেউ ট্রোফিয়া নামক এক মহিলা রাস্তায় মোচড় দিয়ে দিয়ে কাঁপতে শুরু করেন। পরবর্তীতে ইতিহাসবিদরা যার নাম দেন 'ড্যান্সিং প্লেগ'। ট্রোফিয়া প্রায় এক সপ্তাহ ধরে এই নাচ অব্যাহত রেখেছিলেন। পরবর্তীতে তার সঙ্গে আরও প্রায় ত্রিশজন এই নাচে অংশগ্রহণ করে। তারা অনেকেই একটা সময় পানিশূন্যতায় ভুগে মৃত্যুর মুখে ঢলে পড়ে। এক মাসের মধ্যে নাচকেন্দ্রিক এই মহামারি প্রায় চারশ' জনকে প্রলুব্দ করেছিল।

যারা এই নাচে অংশগ্রহণ করেছিল, তাদের অনেকেই ছিল যুবতী এবং দলবদ্ধভাবে নাচে অংশ নিত। বিষয়টি স্থানীয় ম্যাজিস্ট্রেট ও বিশপের নজরে এলে তারা কয়েকজন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারকে এই বিষয়ে অনুসন্ধান করে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেন। পরবর্তীতে স্থানীয় প্রশাসন ও জনগণের হস্তক্ষেপে তাদের একটি হাসপাতালে রেখে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়।

নাচের ঘটনাটি শেষ হয়ে গেলেও অনেকদিন ধরে এর রেশ থেকে যায়। বিষয়টি জনমনে এক অসম্পূর্ণ বিতর্কের জন্ম দেয়। কারও মতে এটা খিঁচুনি দিয়ে শারীরিক বিভিন্ন অঙ্গভঙ্গি প্লেগ রোগেরই একটি উপসর্গ। কেউ কেউ মনে করেন, এটি খাদ্যে বিষক্রিয়াজনিত কারণে সৃষ্ট। কারও মতে, রাইয়ের ময়দা থেকে তৈরি রুটির মাধ্যমে এর উৎপত্তি। যাতে ছত্রাকজনিত রোগের সংক্রমণ থাকায় এমনটি হয়ে থাকতে পারে। আমেরিকান সমাজবিজ্ঞানী রবার্ট বার্থোলোমিওর মতে, তারা ছিলেন নৃত্যবাদী তাত্ত্বিকশিল্পের অনুসারী। তাদের লক্ষ্য ছিল নাচের মাধ্যমে অন্যদের মনোযোগ আকর্ষণ করা ও সহমর্মিতা নেওয়া। কারও কারও মতে, হিস্টিরিয়া বা সাইকোলজিক্যাল ডিসঅর্ডারের প্রকৃত কারণ। এ জাতীয় অসুস্থতায় রোগীরা উদ্ভট আচরণ করতে থাকে। তবে কারণ যাই হোক না কেন সেই সময়ে ড্যান্সিং প্লেগ মহামারির আকারে ছড়িয়ে পড়ে। নাচের মাধ্যমে তারা নিজেদের মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়। বিভিন্ন তথ্য থেকে জানা যায়, ড্যান্সিং প্লেগের কারণে প্রায় পনেরো জনের প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। তবে মৃত্যুর সঠিক তথ্যে ভিন্নমতও রয়েছে। অনেকের মতে, এই সংখ্যা আরও বেশি। কর্তৃপক্ষ প্রকৃত সংখ্যা সবার কাছ থেকে আড়াল করেছে।

ইতিহাসবিদ জন ওয়ালার তার লেখা 'এ টাইম টু ড্যান্স, অ্যা টাইম টু ডাই :দ্য এক্সট্রা অরডিনারি স্টোরি অব ড্যান্সিং প্লেগ' বইতে তিনি লিখেছেন, এই ঘটনাটির সৃষ্টি হয়েছিল মূলত একজন তথাকথিত নৃত্যশিল্পী অথবা ফ্রেউ ট্রোফিয়া নামক একজনের নাচের মাধ্যমে। কোনো কোনো তথ্য মতে, এতে অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা পঞ্চাশজনের মতো আবার কারও কারও মতে, এই সংখ্যা প্রায় চারশ'জন, যা পরে আরও কয়েকটি অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছিল এবং কিছুদিন চলমান থাকার পর এটি এক রকম অসম্পূর্ণ একটি অধ্যায়ের মতো শেষ হয়ে যায়। রেখে যায় জটিল ধাঁধার মতো একটি প্রশ্ন!

স্ট্রসবার্গের ড্যান্সিং প্লেগের ঘটনাটি গল্পের মতো শোনালেও এটি ১৬০০ শতাব্দীর ঐতিহাসিক ঘটনাগুলোর মধ্যে তালিকাভুক্ত একটি ঘটনা। এ জাতীয় ঘটনা কেবল ফ্রান্সেই যে ঘটেছে, তা কিন্তু নয়। সুইজারল্যান্ড, জার্মানি ও হল্যান্ডেও এরকম সাদৃশ্যপূর্ণ ঘটনার ইতিহাসে পাওয়া যায়, যা ১৫১৮ সালের মধ্যে সংঘটিত হয়েছিল। া