দিন রাত্রি

দিন রাত্রি


মনে মনে

প্রকাশ: ০৭ জুন ২০২০      
দিন কাটে তো রাত কাটে না

কতটা কষ্টের সময় যে পার করে চলেছি! আমার এই কষ্টের সময় আমি কাউকে বলতে পারি না। কেউ জানে না।

রাত এখন গভীর। অন্ধকার ঘরে সবাই অচেতন। গভীর নীরবতা চারপাশজুড়ে। ঘুম আসছে না শুধু আমার পোড়া দুই চোখে!

আমি মধ্যবিত্ত পরিবারের মেয়ে। তো, কয়েক বছর আগে আমার মুঠোফোনে একজন লোকের সঙ্গে পরিচয় হয়। তিনি ছিলেন বাঙালি পুরুষ, তবে প্রবাসে থাকতেন। তার কাছ থেকে আমি ছলনা করে, দামি গহনা ও প্রচুর টাকা হাতিয়ে নিয়েছি। তিনি আমাকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলেন, আমার কণ্ঠের জাদুতে হাবুডুবু খেয়েছেন দীর্ঘদিন। পরে এই সম্পর্কের ইতি টানি সে বিবাহিত জানতে পেরে। এমন আরও অনেকের সঙ্গে মিথ্যা প্রেম করে অর্থ জোগাড় করেছি। রূপের মায়ায় যুবকদের পাগল বানিয়েছি। বাছাই করে ধনীদের আমার যৌবন জালে আটক করতাম। কারণ, অভিনয় যে আমার পেশা। চলার পথে ভুলে ভরা জীবন গড়েছি। বাধ্য হয়েছি খারাপ হতে। কিংবা কারও ওপর রাগ করে অসহ্য পৃথিবী কিনেছি! বুঝতে পারিনি। মানুষের সাজানো পথে শুধু হেঁটেই চলেছি আমি। আজ আমি বড় বেশি ক্লান্ত। আর পারছি না অভিশপ্ত সময়ের ভার বহন করতে মোটেও। এভাবে কি বেঁচে থাকা যায়? অন্যের ক্ষতি করে কেউ কখনও সুখী হয় না। তাই তো আমি পাপের ভাগ্যে ভেলা ভাসিয়েছি। শেষ বেলায় রাত জাগা তারাগুলো মাত্র সঙ্গী হলো। বুঝলাম, সব কিছুই ফাঁকি দিয়েছে তাহলে! দেখি, সামনে কোনটা প্রতীক্ষা করছে?

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক, বগুড়া

এখন সময় প্রতীক্ষার

ভালোবাসা বুঝি এমনই হয়? যে শতবার মুখ ফিরিয়ে নিলেও বলতে ইচ্ছা হয়- ভালোবাসি, ভালোবাসি। অনেক ভালোবাসি তোমাকে। হঠাৎ করে দেখা হওয়া, মনের মধ্যে তোমার ছবি এঁকে যাওয়া। কথা বলার সময় তোমার ভঙ্গিগুলো ভালো লাগত। ভালো লাগতে লাগতে তোমার প্রতি অনেক ভালোবাসা জন্মে যাওয়া। ভাবনার আকাশজুড়ে পুরোটা যে তখন শুধুই তুমি। যা হোক, অনেক সূত্রের মাধ্যমে তোমাকে আমার ভালোবাসার কথা জানালাম। কিন্তু বারবার তোমার মুখ ফিরিয়ে নেওয়া। সব সময় তোমার জন্য অপেক্ষা করতাম। কিন্তু তুমি নাছোড়বান্দা। এর পেছনের কারণ আমার জানা ছিল। তুমি শুধু আমার প্রস্তাবে না বলে গেছ। কখনও কাউকে বলনি আমি যেন আর তোমাকে ভালোবাসার প্রস্তাব না পাঠাই অথবা তোমাকে যেন আমি ভুলে যাই। তোমার ভয়ের কারণটা যে আমি আংশিক জানতাম।

এ জন্যই আশা ছাড়িনি, আর তোমার ফিরিয়ে দেওয়ার কারণ জেনে কখনও তোমার সঙ্গে সামনা-সামনি কথাও বলতে চাইনি। যদি বিপদে পড়, কষ্ট পাও! তোমার জন্য তৈরি সেই গিফটটি আজও দেওয়া হয়নি। তোমাকে প্রপোজের যত সব ভিন্ন চিন্তা মাথায় ঘুরপাক খেত সারাক্ষণ। এ জন্যই সেই আজব গিফটটি তোমার জন্য বানানো। বাস্তবতা যে সেই পথ থেকে সরে যেতে আমাকে বাধ্য করেছে। ভিড়ের মাঝে তোমাকে খুঁজে পেয়েও যে হারিয়ে ফেলেছি। তোমাকে অনেক অনেক ভালোবাসি।

ইফতি, মানিকগঞ্জ

একসঙ্গেই তো হাঁটতাম...

চেয়েছিলাম রানীহীন রাজা হয়ে থাকব। কিন্তু হতে দিলে না। কখন যে মনে জায়গা করে নিলে, বুঝতেও দিলে না। ভালোবাসার ভাগ নিয়ে বসলে আমার আপনজন হয়ে। তোমার সঙ্গে কাটানো প্রতিটি মুহূর্ত আমার কাছে নতুন রঙে ধরা দেয়। তোমার মনে আছে? তোমার সঙ্গে যেদিন প্রথম হেঁটেছিলাম। আর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে যেদিন একসঙ্গে ঘুরলাম? আমি যত দিন বেঁচে আছি, ভুলতে পারব না। জানো, তোমার ফোনকলটার অপেক্ষায় সারাদিন হাতে ফোন রাখি! শুধু মনে হয়, এই বুঝি তোমার ফোন এলো! তোমার কণ্ঠ কানে এলে তবেই যেন সব ঠিক। অনেক কিছু বলতে ইচ্ছা করে তোমায়, কিন্তু কিচ্ছু বলতে পারি না। প্রথম প্রেমের অনুভূতিগুলো বুঝি এমনই হয়। তোমায় বড় বেশি ভালোবেসে ফেলেছি বলেই হয়তো কোনো দিন ভুলতে পারব না। তাই মনে হয় তুমি আমায় ছেড়ে চলে যাবে, সেটা আমার পক্ষে মেনে নেওয়া সম্ভব নয়। তোমাকে আমার কাছ থেকে কোনো দিন যেতে দেব না। তোমাকে হারানোর ভয়টা আমার সব সময়ই ছিল। তাই এখনও বলছি, তুমি পারবে আমি জানি... হেরে যেও না। তোমায় সারাজীবন উৎসর্গ করে ভালোবাসতে চাই, শুধু একটি সুযোগ করে দাও। একটি...।

ফরহাদ হোসেন, কুষ্টিয়া বিশ্ববিদ্যালয়