চারমাত্রা

চারমাত্রা


প্রিয় মুখের কাছে লেখা চিঠি

নুয়ে থাকা ইচ্ছেরা

প্রকাশ: ০৩ আগস্ট ২০১৯      

মোস্তফা হায়দার

একটা সময় ছিল, যখন চিঠিই ছিল দূরে থাকা প্রিয় মানুষটির সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম। আধুনিক যোগাযোগের এই সময়ে অনেক কিছুর মতোই হারিয়ে যাচ্ছে চিঠি। 'প্রিয় মুখের কাছে লেখা চিঠি' শিরোনামে চিঠি আহ্বান করেছি আমরা। সাড়াও মিলেছে প্রচুর। বাছাই করা কয়েকটি চিঠি নিয়ে চারমাত্রার এবারের আয়োজন...

তোমাকে যে কথা বলা হয়নি সে কথা হয়তো আর বলা হবে না! তাতেই বা কী! তোমাকে লালন করা এক শর্ষের কাছে নিয়ত স্বপ্নের চারা রোপণ করি। স্বপ্নরা একেক সময় একেক রঙের পসরায় আপন খোলসে সং সাজায়। সে সংয়ের কাছে আমি পরাজিত। নীল আর সবুজের কাছে নুয়ে থাকে আমার ইচ্ছেরা। কে শোনে ইচ্ছের বাণীটুকু!

বহু রাত কবিতার চরণতলায় মোমের শিখার মতো জ্বলতেই ছিলাম। কেউ না জানুক, বিশ্বাসের ঈশ্বর আমার সব দেখেন বলে আমিও বাঁচি বিশ্বাসে। তোমার সবটুকুতে আমার দাবি নেই। তবে আবদারের ভাষায় বারবার তোমাকেই খুঁজি। কাননের হুক খোলা দক্ষিণের দরোজায় নিঃশ্বাসের পরশটুকু এলিয়ে দিই তোমাকে দেখব বলে। এসো কোনো এক সকালে অথবা সন্ধ্যার পরপর ঝিঁঝিঁডাকা এক পূর্ণিমার চাদরে। যেখানে বসে শুধু তোমাকে দেখে নেব সেতু পার হওয়া দ্যুতি হিসেবে। ও পথ মসৃণ এক বেহালাবাদকের জায়গাও বটে। বড়ই পিচ্ছিল! দেখব বলেই আশার জিঞ্জিরায় গেঁথে রাখি ইচ্ছেমাখা ভালোবাসার পরশটুকু। এসো বন্ধু, এসো।

আজ বাদলের মাস। বরষার জলের সঙ্গে লুকোচুরি খেলায় মেঘেরা মেতে আছে। আকাশের চাদর মেলে দেখতে পাই তাদের বেদনার কত ধরন। আর আমি সে জল নিয়ে বুকে বাঁধি আশার ফানুস। মানুষ তো আশায় বাঁচে। বাঁচতে না জানার কাছে ইচ্ছের মৃত্যু নিশ্চিত। আর সুন্দরের পূজায় থাকে আরাধনা আর ভালোবাসার মায়াময় স্নিগ্ধতা। হয়তো আবেগের কাছে হারতে শেখেনি তেমন একটা। তবে ইচ্ছের কাছে নিয়ত ধরা দিই স্বপ্নের ছাতি নিয়ে হাতে।

যেখানে লুকিয়ে রাখা যায় সমুদ্রের মতো বিশাল হৃদয়, সে হৃদয়ের ঘাটে ভাসাই তোমার মুখচ্ছবি। এসো বন্ধু, খুশিতে মেলে ধরি জোছনাময় সময়ের।


চট্টগ্রাম