ইন্টারভিউর পর ...

প্রকাশ: ২৭ জুলাই ২০১৯      

গোলাম কিবরিয়া

ইন্টারভিউর আগে আমাদের কী কী করণীয় তা নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়ি। এমনকি ইন্টারভিউর সময় কী করতে হবে তা নিয়েও বিস্তর ঘাঁটাঘাঁটি করি। কিন্তু ইন্টারভিউ দেওয়ার পর কী করবেন তা কী কখনও ভেবে দেখেছেন?

আসুন জেনে নেই ইন্টারভিউ দেওয়ার পরে করণীয় কী-

১। ইন্টারভিউ শেষে আপনাকে যখন প্রশ্ন করা হয়, আপনার কি আমাদের কাছে কিছু জানার আছে? অধিকাংশ ক্ষেত্রেই আমরা উত্তর দেই- না। এটা আমাদের একটা কমন ভুল। 'না' উত্তরটি দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আপনি কিন্তু পরবর্তী যোগাযোগের সব রাস্তা বন্ধ করে দিচ্ছেন। আপনি নিয়োগদাতার কাছে কোম্পানির বেতন, পলিসি, সুযোগ-সুবিধা সম্পর্কে জানতে চাইতে পারেন।

২। এরপর হাসিমুখে বলতে পারেন, 'স্যার কবে থেকে জয়েন করতে হবে?' আপনার ভিন্ন রকম এই অ্যাপ্রোচে ইন্টারভিউ বোর্ডে উপস্থিত নিয়োগকর্তাদের মধ্যে অন্যরকম মনোভাব তৈরি হবে। তবে এ রকম স্মার্ট অ্যাপ্রোচে যাওয়ার আগে ইন্টাভিউয়ারের মানসিকতা বুঝতে চেষ্টা করুন। এ ছাড়া কবে নাগাদ ফলাফল জানা যাবে সেটাও জেনে নিতে পারেন।

৩। স্যার, আমি যে কোনো কাজ করতে পারব, আমার ব্যাপারটা একটু দেখবেন। অথবা, 'স্যার, আমি ফ্যামিলি নিয়ে খুব সমস্যায় আছি, চাকরিটা আমার খুব দরকার' এ রকম কথা বলে শেষ করবেন না। নিজের দুর্বলতা প্রকাশ করবেন না। অন্তত এভাবে বলুন, 'আশা করি খুব শিগগিরই আপনাদের সঙ্গে আবার দেখা হবে।'

৪। ইন্টারভিউ শেষে যিনি ইন্টারভিউ নিলেন, তার একটা কার্ড চেয়ে নিন।

৫। কোনো কারণে যদি বুঝতে পারেন চাকরিটা আপনার হচ্ছে না, তাহলে সুযোগ বুঝে ইন্টারভিউয়ারের ফিডব্যাক নিন। আপনার ভুলগুলো জেনে নেওয়ার চেষ্টা করুন।

৬। বাসায় পৌঁছে ইন্টারভিউয়ারকে 'থ্যাংক ইউ' মেইল দিন। এ ধরনের মেইলে কী লিখবেন? লিখতে পারেন-

আমি আপনাদের কোম্পানিতে ইন্টারভিউ দিতে পেরে অত্যন্ত আনন্দিত (ইন্টারভিউ ডেট ও কোন পদের জন্য ইন্টারভিউ দিয়েছেন সেটা উল্লেখ করুন)। ইন্টারভিউ থেকে আপনি কী কী শিখেছেন এ রকম দুটি পয়েন্ট উল্লেখ করুন। এরপর নিজের সবল দিকগুলো দিয়ে কীভাবে আপনি কোম্পানির উন্নতি করতে পারবেন কয়েক বাক্যে লিখুন। শেষে গিয়ে পুনরায় কল পাওয়া বা সিলেক্টেড হওয়ার আশাবাদ জানিয়ে মেইল শেষ করুন। মোট চার প্যারায় সাত থেকে আট বাক্য লিখবেন।

৭। ইন্টারভিউ খারাপ হলেও সামাজিক গণমাধ্যমে এ নিয়ে কোনো বাজে মন্তব্য করবেন না। এতে আপনার সঙ্গে পরিচিতরা আপনাকে আর রেফার করবেন না। ধরুন, আপনি একটি কোম্পানির ভাইভা দিয়েছেন। ভালো হয়নি, যাচ্ছে তাই লিখে পোস্ট দিলেন। আপনার ফেসবুকেই রয়েছে অন্য একটি কোম্পানির কেউ একজন। সে কি আপনাকে আর কখনও রেফার করবেন?

৮। ইন্টারভিউ দেওয়ার পর আমরা আর ফলোআপ করি না, এটা আমাদের বড় ভুল।

৯। বারবার ফোন দিয়ে নিয়োগকর্তাকে বিরক্ত করবেন না। সপ্তাহ খানেক পরে, থ্যাংক ইউ মেইলের নিচে একটি ফলোআপ মেইল ড্রপ করতে পারেন। একটি মেসেজ দিতে পারেন।

১০। যারা ইন্টারভিউ দিতে গিয়েছেন, তাদের সঙ্গে পরিচিত হোন। তাদের সম্পর্কে জানুন। নিজের সম্পর্কে তাদের জানান। তাদের মাধ্যমে আপডেট জানতে পারবেন, নতুন সুযোগও তৈরি হতে পারে। রুমে ঢোকার সময় এবং বের হওয়ার সময়ের ইম্প্রেশন বা ভাবভঙ্গি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। হাসিমুখে বের হোন। আপনার হাসিমুখ ও স্কিলের একটা ইমেজ ইন্টারভিউ রুমে দিয়ে আসুন।

পরবর্তী খবর পড়ুন : পদ খালি কমিউনিটি ব্যাংকে

অন্যান্য