এই অর্জন দেশের জন্য

প্রকাশ: ২৮ জুলাই ২০১৯      

রাফসান রহমান রায়ান

তিন বছর ধরে জীববিজ্ঞান অলিম্পিয়াডের পথে চলছি। শুরু ২০১৭ থেকে। প্রথম বার বাইওক্যাম্পের ভর্তি পরীক্ষায় সর্বোচ্চ নম্বর পেয়েও ক্যাম্পেই আমার দৌড় শেষ। ২০১৮ সালে এক্সটেন্ডেড ক্যাম্প থেকে বিদায়। অল্পের জন্য বাংলাদেশ দলে নিজের নাম লেখাতে পারিনি। তবে হাল ছেড়ে দিইনি। এ বছর সরাসরি এক্সটেন্ডেড ক্যাম্পে সুযোগ পাই এবং অবশেষে জয়ী হই।

মে-জুন মাসে এ-লেভেল পরীক্ষার মাঝেই আমরা চারজন সময় বের করে আন্তর্জাতিক জীববিজ্ঞান অলিম্পিয়াডের জন্য প্রস্তুতি নিই। এ-লেভেল পরীক্ষা শেষে নিয়মিত পান্থপথে ল্যাব-বাংলার অফিসে বাংলাদেশ জীববিজ্ঞান অলিম্পিয়াড অফিসে দেখা করতাম। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যবহারিক জীববিজ্ঞানের অনুশীলন করতাম। সমকাল আয়োজন করেছিল অনুপ্রেরণা সম্মিলন। রোদ-ঝড়-বৃষ্টি কাটিয়ে নিয়মিত উত্তরা থেকে যাতায়াত করতাম। এই কষ্ট ভালোই লাগত। যখন মনে হতো আমি দেশের জন্য এই কষ্ট করছি। আর এমন সুযোগ জীবনে বারবার আসে না।

১৪ জুলাই আন্তর্জাতিক জীববিজ্ঞান অলিম্পিয়াডের উদ্দেশ্যে দেশ ছাড়ি। বিমানে প্রথম ঢাকা থেকে দুবাই। সেখান থেকে হাঙ্গেরির রাজধানী বুদাপেস্ট। তারপর বাসে যেগেদ শহরে। সেখানেই মূল অনুষ্ঠান। সন্ধ্যায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রত্যেক দেশের দল তাদের পতাকা নিয়ে মঞ্চে দাঁড়ানোর সুযোগ পায়। সেই মুহূর্তে আমার বুক গর্বে ফুলে ওঠে। আর জাতীয় পতাকা দেখে মনের সব ভয় ও দ্বিধা কেটে যায়। তারপরের এক সপ্তাহ আমার এবং আমাদের জীবনের সবচেয়ে বৈচিত্র্যময় ও আনন্দের। প্রতিযোগিতার পাশাপাশি বুদাপেস্ট ও যেগেদ শহরের আকর্ষণীয় জায়গা দর্শন করেছি, হাঙ্গেরির ঐতিহ্যবাহী বিভিন্ন স্থানে বেড়াতে গিয়েছি। ওয়াটার পার্কে মজা করেছি। এবার পরীক্ষার কথায় আসি। আমাদের প্রশ্নগুলো ছিল দীর্ঘ ও দুঃসাধ্য! এ রকম পরীক্ষার তুলনা হয় না। কেউই শেষ করতে পারেনি। ফল প্রকাশের আগ পর্যন্ত কে কার চেয়ে ভালো করেছে বোঝার উপায় ছিল না। সমাপনী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের তিনটি ব্রোঞ্জ পদক জয়ের ঘোষণা শুনে আমরা আনন্দে আত্মহারা হয়ে যাই। মঞ্চে আমাকে ডেকে নেওয়ার পর আমি বিস্ময়ে নির্বাক হয়ে যাই। আমি পেরেছি! দেশের জন্য এমন অর্জনের অনুভূতি সত্যিই অন্যরকম।

আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় এর আগেও বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেছি। তবে ২০১৯ সালের আন্তর্জাতিক জীববিজ্ঞান অলিম্পিয়াডের জমজমাট, মজাদার ও আকর্ষণীয় আয়োজনই আমার কাছে সেরা। আগামী বছর অংশগ্রহণের সুযোগ পেলে হয়তো আরও ভালো কিছু করতে পারব।

পরবর্তী খবর পড়ুন : প্রথম ডাকটা আমিই পাই

অন্যান্য