খাসোগির হত্যাকারীদের 'ক্ষমা' করলেন ছেলেরা

প্রকাশ: ২৩ মে ২০২০

সমকাল ডেস্ক

সৌদি আরবের সাংবাদিক জামাল খাসোগির ছেলেরা তাদের বাবার হত্যাকারীদের 'ক্ষমা' করে দিয়েছেন বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন। বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গতকাল শুক্রবার পরিবারের পক্ষ থেকে টুইটারে এ বিবৃতি দেন খাসোগির ছেলেদের একজন সালাহ খাসোগি। তবে তার বাগদত্তা ও তুরস্কের নাগরিক হেটিজে জেঙ্গিস বলেছেন, 'খাসোগির হত্যাকারীদের ক্ষমা করে দেওয়ার অধিকার কারও নেই।'

সালাহ টুইটারে লিখেছেন, 'পবিত্র রমজানের মহিমান্বিত রাতে আমরা আল্লাহর একটি কথা স্মরণ করছি। আল্লাহ বলেছেন, 'যদি কোনো ব্যক্তি ক্ষমা করে দেয়, তাহলে আল্লাহর পক্ষ থেকে তাকে পুরস্কৃত করা হবে।' সুতরাং আমরা শহীদ জামাল খাসোগির ছেলেরা ঘোষণা করছি, যারা আমাদের বাবার হত্যাকারী, আমরা তাদের ক্ষমা ও মার্জনা করছি।'

ইসলামী আইন অনুযায়ী, ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তি বা পরিবারের সদস্যরা ক্ষমা করে দিলে অপরাধীর সাজা মওকুফ বা কম হতে পারে। তবে খাসোগি হত্যাকাণ্ডে শাস্তিপ্রাপ্তদের সাজার ক্ষেত্রে সালাহর ঘোষণা কোনো ধরনের প্রভাব ফেলবে কিনা তা এখনও নিশ্চিত নয়। বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সৌদি কর্তৃপক্ষ এখনও এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করেনি। তবে সালাহর এ ধরনের মন্তব্যের পেছনে রাজপরিবারের সঙ্গে অর্থ লেনদেনের ব্যাপার থাকতে পারে বলে কানাঘুষা রয়েছে। যদিও সালাহ তা অস্বীকার করেছেন। রাজপরিবারের প্রত্যক্ষ সহায়তায় সালাহ সৌদিতেই বসবাস করছেন।

পরিবারের পক্ষ থেকে ক্ষমার ঘোষণা আসার পরই খাসোগির বাগদত্তা টুইটারে লিখেছেন, 'আমাদের বিয়ের জন্য কাগজ জোগাড় করতে গিয়ে নিজ দেশের কনস্যুলেটের ভেতর খুন হন জামাল খাসোগি। হত্যাকারীরা সৌদি আরব থেকে পরিকল্পনা করে এসে কনস্যুলেটের ভেতর ওত পেতে ছিল এবং সেখানেই তারা তাকে হত্যা করে।' জামাল খাসোগি এক সময় সৌদি রাজপরিবারের ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত ছিলেন। তবে একপর্যায়ে অবস্থান পাল্টে তিনি রাজপরিবারের কঠোর সমালোচকে পরিণত হন। যুক্তরাষ্ট্রের দ্য ওয়াশিংটন পোস্টে তিনি সৌদি রাজপরিবারের নানা কর্মকাণ্ডের সমালোচনা করে কলাম লিখতেন। ২০১৮ সালের অক্টোবর মাসে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটে খাসোগিকে হত্যা করা হয়। হত্যার পর তার লাশ গায়েব করে দেওয়া হয়।