হুবেইতে মুক্তির আনন্দ

লকডাউন উঠে যাওয়ায় স্বজনের কাছে ছুটছে মানুষ

প্রকাশ: ২৬ মার্চ ২০২০

সমকাল ডেস্ক

চীনের হুবেই প্রদেশে জীবন স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে ফের। প্রায় দুই মাসের বেশি সময় অবরুদ্ধ থাকার পর গতকাল বুধবার সেখানকার মানুষের মুক্তি মিলেছে। সেই আনন্দে চিরচেনা রূপে ফিরেছে রাজপথ, নানা ধরনের নির্মাণকাজ আবার শুরু হয়েছে, বাস-ট্রেন ধরে কাজে ছুটছে মানুষ। দেখে বোঝারই উপায় নেই এ অঞ্চলটি দুই মাস ধরে ছিল করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কেন্দ্র। এদিকে চীনের প্রধানমন্ত্রী লি কেকিয়াং দেশটির কর্মকর্তাদের নতুন সংক্রমণের তথ্য যাতে কোনোভাবে গোপন করা না হয়, সেজন্য কঠোর নির্দেশনা দিয়েছেন। খবর রয়টার্স ও এএফপির।

বর্তমানে করোনাভাইরাসে সংক্রমণের ঘটনা খুব বেশি একটা নেই চীনের মূল ভূখণ্ডে। নতুন করে সংক্রমণের যে খবর পাওয়া যাচ্ছে, তাদের সবাই বিদেশফেরত। এমন অবস্থায় মঙ্গলবার মধ্যরাত থেকেই হুবেই প্রদেশে যান চলাচলে বিধিনিষেধ শিথিল করা হয়। তবে প্রদেশের রাজধানী উহানে রেল ও বিমানবন্দর বন্ধ রয়েছে। ৮ এপ্রিল উহানের লকডাউন তুলে নেওয়া হবে। তবে উহানের মানুষও স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে শুরু করেছে। মুখে মাস্ক পরে তারা রাস্তায় বের হচ্ছে। হুবেই প্রদেশে দুই মাস ধরে আটকে থাকার পর ৮০০ মানুষ গতকাল বেইজিংয়ে নিজ বাড়িতে ফিরেছেন। দীর্ঘ বিচ্ছেদের পর পরিবারের সদস্যদের দেখতে পারবেন তারা। তবে ২০ হাজার শিক্ষক-শিক্ষার্থী এখনও হুবেইয়ে আটকা পড়ে আছেন। হুবেইয়ের স্থানীয় সরকার বাসিন্দাদের কাজে যোগ দিতে আহ্বান জানিয়েছেন। সিনহুয়ার খবরে বলা হয়েছে, গতকাল থেকেই উহানের সঙ্গে সংযুক্ত ৩০টি মহাসড়ক খুলে দেওয়া হয়েছে। সেই সড়কগুলোতে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

মাচেংয়ের এক রেলস্টেশনে দেখা গেছে, ভিড়ের মধ্যেও বহু মানুষ ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করছেন। শিশুদের মুখে ছিল মাস্ক। ভিড়ের মধ্যে নিরাপত্তাকর্মীরা লোকজনকে নির্দেশনা দিচ্ছেন। করোনাভাইরাসে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত শহর হুয়াংগ্যাংয়ের প্রবাসী শ্রমিকরা দূরপাল্লার গাড়ির জন্য লাইন দিয়েছেন। দুই মাস আটকে থাকার পর তাদের অনেকেই চীনের বিভিন্ন প্রদেশে নিজ বাড়িতে ফিরে যান।

অনেকেই আবার ফিরছেন হুবেইয়ে নিজ নিজ বাড়িতে। তবে হুবেইয়ে জনজীবন স্বাভাবিক হতে শুরু করলেও সেখানে বিদেশফেরতদের মাধ্যমে যাতে ফের ভাইরাসের সংক্রমণ না হতে পারে, সেজন্য কঠোর নজরদারি বজায় রয়েছে।