বাস থেকে নামিয়ে ১৪ জনকে গুলি করে হত্যা

প্রকাশ: ১৯ এপ্রিল ২০১৯

সমকাল ডেস্ক

পাকিস্তানের বেলুচিস্তানে মুখোশপরা বন্দুকধারীরা ১৪ বাসযাত্রীকে গুলি করে হত্যা করেছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। গতকাল বৃহস্পতিবার গুয়োদর থেকে করাচি যাওয়ার সময় একটি প্রত্যন্ত অঞ্চলে কয়েকটি বাস থেকে জোরপূর্বক নামিয়ে তাদের গুলি করা হয়। ই-মেইলে পাঠানো এক বিবৃতিতে হামলার দায় স্বীকার করেছে বেলুচিস্তানভিত্তিক বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সশস্ত্র সংগঠন বালুচ রাজি আজোই সাঙ্গার। এ ঘটনার কড়া নিন্দা করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। খবর ডন ও আলজাজিরার।

বৃহস্পতিবার ভোরে পাকিস্তানের মাকরান কোস্টাল হাইওয়ে দিয়ে যাওয়ার সময় ওরমারা শহর থেকে প্রায় ৬০ কিলোমিটার দূরে পাঁচ-ছয়টি বাস থামায় ১৫-২০ মুখোশধারী। এ সময় যাত্রীদের পরিচয়পত্র তল্লাশি করে ১৬ জনকে গাড়ি থেকে নামায় তারা। পরে তাদের পার্শ্ববর্তী পাহাড়ের ওপর নিয়ে হাত বেঁধে গুলি করে। ঘটনাস্থলেই গুলিতে নিহত হন বাসের ১৪ আরোহী। আহত অবস্থায় পালিয়ে যেতে সক্ষম হন দু'জন। তারা দ্রুত স্থানীয় সেনা ক্যাম্পে খবর দেন।

সশস্ত্র সংগঠন 'বালুচ রাজি আজোই সাঙ্গার' তাদের বিবৃতিতে জানিয়েছে, 'বেছে বেছে পাকিস্তানি সেনা এবং উপকূলবর্তী রক্ষীবাহিনীর সদস্যদের হত্যা করা হয়েছে। পরিচয়পত্র দেখে নিশ্চিত হওয়ার পরই তাদের হত্যা করা হয়েছে।' পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্র সচিব হায়দর আলি বলেন, হামলাকারীরা সংখ্যায় ছিল প্রায় দু'ডজন। তারা প্যারামিলিটারি ফ্রন্টিয়ার কোরের পোশাক পরা ছিল। নিহতরা সবাই পাকিস্তানের নাগরিক। এখন পর্যন্ত জানতে পেরেছি, নিহতদের মধ্যে এক সেনা এবং উপকূল রক্ষীবাহিনীর এক সদস্য রয়েছেন।

সরকারি চিকিৎসক মোহাম্মদ মুসা জানিয়েছেন, নিহত ১৪ জনের সবাইকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। তাদের বেশিরভাগেরই মাথায় গুলি করেছে দুর্বৃত্তরা। প্রাদেশিক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জিয়া ল্যাংগোভ জানিয়েছেন, হামলার পরপরই বন্দুকধারীরা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়েছে। তাদের ধরতে এরই মধ্যে তল্লাশি অভিযান শুরু হয়েছে। তিনি আরও বলেন, অনেক দীর্ঘ হওয়ায় মহাসড়কটিতে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা বেশ কঠিন। এ মহাসড়কে অনেক নিরাপত্তা পোস্ট রয়েছে। এজন্য সন্ত্রাসীরা এ ধরনের হামলা চালাতে প্রত্যন্ত অঞ্চল বেছে নেয়।