তিন বছর ধরে বেতন পান না শিক্ষকরা

প্রকাশ: ১০ অক্টোবর ২০১৯      

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি

মানিকগঞ্জের দৌলতপুর মতিলাল ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ এবং কয়েকজন সিনিয়র শিক্ষকের বিরোধিতার কারণে অনার্স কোর্স চালু করা সম্ভব হচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন শিক্ষক ও কলেজের শিক্ষার্থীরা। এসব জটিলতার কারণে ১৪ শিক্ষক তিন বছর ধরে কোনো বেতন-ভাতা পাচ্ছেন না। অনার্স কোর্স চালু করা ও বেতন-ভাতার দাবিতে বুধবার মানিকগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেছেন তারা।

মানববন্ধন কর্মসূচিতে অংশ নেওয়া শিক্ষকরা বলেন, দীর্ঘদিন ধরে নিয়োগ পেলেও বর্তমান অধ্যক্ষ, সাবেক অধ্যক্ষসহ সিনিয়র শিক্ষকদের মধ্যে দ্বন্দ্বের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন তারা। শিক্ষক নিয়োগ হলেও বেতন না পাওয়ায় মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন তারা। মানববন্ধনে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীরা জানান, দৌলতপুর উপজেলায় বর্তমানে কোনো অনার্স কলেজ নেই। এ উপজেলার শিক্ষার্থীদের অনার্স নিয়ে লেখাপাড়া করতে হলে জেলা শহরে যেতে হয়। লেখাপড়ার খরচ বেড়ে যায়। তারা জানান, এরই মধ্যে এ কলেজটি সরকারীকরণের অনুমোদন পাওয়া গেছে। কিন্তু তার পরও অনার্স কোর্স খোলার কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে না। এ ব্যাপারে অধ্যক্ষকে অভিযুক্ত করেন তারা। ওই কলেজের অনার্স কোর্সের হিসাববিজ্ঞান শাখার প্রভাষক আমিনুল ইসলাম ও রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষক মিজানুর রহমান জানান, কলেজের পরিচালনা পরিষদের ২০১৪ সালের ২৯ মের সভায় হিসাববিজ্ঞান ও রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ে অনার্স খোলার সিদ্ধান্ত হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ও সরকারিবিধি অনুযায়ী ২০১৫ সালের ২২ ডিসেম্বর ওই দুই বিষয়ে প্রভাষক নিয়োগের জন্য লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা হয়। পরে নিয়োগ কমিটির সুপারিশ ও পরিচালনা পরিষদের অনুমোদনক্রমে ২০১৬ সালের ১ সেপ্টেম্বর ১৪ জন শিক্ষককে নিয়োগ দেওয়া হয়। কলেজ কর্তৃপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে অনার্স কোর্স চালু করার অধিভুক্তির সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য একটি পরিদর্শক দল গঠন করে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রজ্ঞাপন জারি করে। ২০১৬ সালের ১০ ডিসেম্বর এ প্রজ্ঞাপন জারি করা হলেও পরিদর্শক দলকে কলেজ কর্তৃপক্ষ আহ্বান করেনি।

ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ রুহল আমিন বলেন, তিনি দায়িত্ব নেওয়ার আগেই অনার্স কোর্সে শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে কলেজটি সরকারীকরণের তালিকাভুক্ত হয়েছে। ফলে অনার্স কোর্স চালু করা যাবে কি-না এ বিষয়ে শিক্ষা অধিদপ্তরে জানতে চাওয়া হয়েছে। এখন পর্যন্ত তার উত্তর পাওয়া যায়নি বলে জানান।