পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগে অস্বচ্ছতার অভিযোগ

সুনামগঞ্জ

প্রকাশ: ০৭ জুলাই ২০১৯      

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি

স্বপন রবি দাসের মাথায় যেন আকাশ ভেঙে পড়ল। বৃহস্পতিবার বিকেলে সুনামগঞ্জ শহরের পুলিশ লাইন্স মাঠে সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে ২৫৫ জন পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগের ফল ঘোষণা করা হয়। এ সময় মৌলভীবাজারের পুলিশ সুপার সারোয়ার আলম অন্যদের সঙ্গে স্বপন রবি দাসের উত্তীর্ণের কথা জানিয়ে রোল ও নাম ঘোষণা করেন। পরে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ বরকতুল্লাহ খান কনস্টেবল পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের মধ্যে আগ্রহীদের সাংবাদিকেদের সামনে কথা বলার আহ্বান জানান। স্বপন রবি দাস এ সময় বলেন, ছোটবেলা থেকেই পুলিশে চাকরি করার স্বপ্ন ছিল। সবার সামনে বক্তব্য দেওয়ার সময় স্বপন বলেন, চাকরি পাওয়ায় নতুনভাবে বাঁচার স্বপ্ন দেখছি। এই চাকরি শুধু তার নয়, তার পুরো পরিবারের সামাজিক অবস্থান বদলে দেবে। তবে শনিবার সকালে পূর্ব নির্ধারিত নোটিশ অনুযায়ী পুলিশ লাইন্সে মেডিকেল করাতে যান তিনি। এ সময় দায়িত্বশীলরা জানান, অপেক্ষমাণ তালিকায় আছেন স্বপন রবি দাস। তিনি বলেন, অপেক্ষমাণ তালিকায় থাকার কথা শুনে আমার মাথায় যেন আকাশ ভেঙে পড়ল। সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ সুপারকে বিষয়টি জানাই। এ ছাড়া এলাকার সাংসদ পরিকল্পনামন্ত্রীকে বিষয়টি জানিয়েছি। তিনি বলেছেন, কাল এলাকায় আসবেন, দায়িত্বশীলদের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইবেন।

এ প্রসঙ্গে পুলিশ সুপার বরকতুল্লাহ খান বলেন, স্বপন রবি দাসের নাম অপেক্ষমাণ হিসেবেই ঘোষণা করা হয়। ফল ঘোষণার সময় সে নিজে থেকেই আগ্রহী হয়ে বক্তব্য দেয়। শনিবার সে আমার কাছেও এসে কান্নাকাটি করেছে। আমার নিজেরও খুব খারাপ লেগেছে। নিয়োগ প্রক্রিয়া এত স্বচ্ছভাবে হয়েছে, এখানে ফল বদলানোর কোনো সুযোগ কারও নেই।

সুনামগঞ্জে বৃহস্পতিবার পরীক্ষা শেষে ২৫৫ জন পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগ পেয়েছে। এর মধ্যে সাধারণ কোটায় পুরুষ ১২৩, মুক্তিযোদ্ধা কোটায় পুরুষ ৭২, নারী সাধারণ কোটায় ৪৫, মুক্তিযোদ্ধা কোটায় নারী ৭, পুলিশ পৌষ্য ৩, উপজাতি ২ ও আনসার কোটায় ৩ জনকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। স্বপনের বাড়ি দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পাথারিয়া ইউনিয়নের গণিগঞ্জ গ্রামে। তার বাবা বাঁশি রাম রবি দাস ও মা ময়নামতি রানী রবি দাস।