আল-হাজ্ব টেক্স বন্ধ, আরএন জেড ক্যাটাগরিতে

প্রকাশ: ১০ অক্টোবর ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

আল-হাজ্ব টেক্সটাইল কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদ কোম্পানিটির কারখানা বন্ধ ও কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ সব শ্রমিক ছাঁটাইয়ের সিদ্ধান্ত জানিয়েছে। আর আগেই বন্ধ হওয়া বস্ত্র খাতের আরেক কোম্পানি আরএন স্পিনিংয়ের ছয় মাস ব্যবসায়িক কার্যক্রম না থাকায় স্টক এক্সচেঞ্জ শেয়ারটিকে জেড ক্যাটাগরিতে নামিয়ে এনেছে। এ খবরে উভয় কোম্পানির শেয়ারের দরপতন হয়েছে।

গতকাল বুধবার আল-হাজ্ব টেক্সটাইলের শেয়ার প্রায় ১০ শতাংশ দর হারিয়ে ৪২ টাকা ৯০ পয়সায় কেনাবেচা হয়েছে। ছিল দরপতনের শীর্ষে। এমন খবরে বিদ্যমান শেয়ারহোল্ডারদের অনেকেই শেয়ার বিক্রির আদেশ দিলেও ক্রেতা সংকট ছিল। অন্যদিকে আরএন স্পিনিংয়ের শেয়ার ২ শতাংশ দর হারিয়ে ৪ টাকা ৭০ পয়সায় কেনাবেচা হয়েছে।

অথচ কিছুদিন আগেও আল-হাজ্ব টেক্সটাইলের শেয়ার নিয়ে বেশ হৈচৈ ছিল। শেয়ারটির লেনদেন পর্যালোচনায় দেখা গেছে, গত ২১ জুলাই এর বাজারদর ছিল ৪৩ টাকা। এর এক মাসের মধ্যে শেয়ারটির দর ৮০ শতাংশ বেড়ে ৭৭ টাকা ছাড়ায়। এর পর থেকে চলছে দরপতন।

সুতার বিক্রি বন্ধ হয়ে পড়ায় গত ২৪ জুলাই আল-হাজ্ব টেক্সের পরিচালনা পর্ষদ এর উৎপাদান কার্যক্রম সাময়িক বন্ধ ঘোষণা করে। এরপর আরও তিন দফায় লে-অফের মেয়াদ বাড়ায়। আড়াই মাস পর গত মঙ্গলবার কারখানা পুরোপুরি বন্ধ এবং সব কর্মীকে ছাঁটাই করার ঘোষণা দিল কোম্পানিটি।

গত এপ্রিলের শুরুতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় কুমিল্লা ইপিজেডের কোম্পানি আরএন স্পিনিং বন্ধ থাকার মেয়াদ ছয় মাস পার হয়েছে। এ সময়েও কোম্পানিটির উৎপাদন কার্যক্রম শুরু করতে না পারায় আইনি বিধান অনুযায়ী ডিএসই ও সিএসই কোম্পানিকে জেড ক্যাটাগরিতে অবনমন করেছে। এর ফলে আগামী ৩০ দিন কোম্পানিটির শেয়ার কেনায় মার্জিন ঋণ মিলবে না।

এদিকে শেয়ারবাজারের সার্বিক দরপতনের ধারা অব্যাহত আছে। গতকালও ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৬৮ শতাংশ এবং সিএসইতে লেনদেন হওয়া ৬২

শতাংশ শেয়ার দর হারিয়েছে। কোনো খাতই দরপতনের বাইরে ছিল না।