যেখানে কোচের চেয়ে ম্যানেজার বড়

প্রকাশ: ০৬ আগস্ট ২০১৯      

বিশ্বকাপ ব্যর্থতার পর ওটিস গিবসনকে সরিয়ে দিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। কেবল প্রধান কোচ নয়, সহকারী কোচ মালিবঙ্গো মাকেতা, ফিল্ডিং কোচ জাস্টিন অংটং, স্পিন কোচ ক্লদি হেন্ডারসন, ব্যাটিং কোচ ডেল বেনকেনস্টেইন এবং নির্বাচক কমিটির আহ্বায়ক লিন্ডা জন্ডির সঙ্গেও চুক্তি নবায়ন করা হয়নি। গোটা কোচিং স্টাফকে বরখাস্ত করে দেওয়ার মূলে দল পরিচালনা পদ্ধতিতে পুনর্গঠন। ক্রিকেট সাউথ আফ্রিকা (সিএসএ) সিদ্ধান্ত নিয়েছে, এখন থেকে জাতীয় দল চলবে একজন টিম ম্যানেজারের অধীনে। এই ম্যানেজারই প্রয়োজনবোধে সহকারী কোচ, এক বা একাধিক অধিনায়ক এবং ফিজিও নিয়োগ দেবেন। টিম ম্যানেজার নিয়ন্ত্রিত হবেন বোর্ডের ডিরেক্টর অব ক্রিকেটের অধীনে। ফুটবলীয় মডেলের এই ব্যবস্থা অবশ্য সহসাই বাস্তবায়িত হওয়ার সম্ভাবনা কম। সামনের মাসেই দক্ষিণ আফ্রিকার ভারত সফর। এ সফরে ভারপ্রাপ্ত টিম ডিরেক্টর আর ম্যানেজার দিয়ে কাজ চালানোর কথা জানিয়েছে সিএসএ। তবে শিগগিরই পদগুলো স্থায়ী নিয়োগের জন্য বিজ্ঞাপন দেওয়া হবে। এখন থেকেই আলোচনা শুরু হয়ে গেছে কাকে দেওয়া হবে টিম ম্যানেজারের দায়িত্ব। প্রথমেই নাম উঠে এসেছে পিটার মুরসের। ইংল্যান্ডকে দুই দফায় কোচিং করানো এই ইংলিশ এখন নটিংহামশায়ারের দায়িত্বে আছেন। মুরস প্রথমবার যার সঙ্গে ঝামেলা বাধিয়ে দায়িত্ব ছেড়েছিলেন, সেই কেভিন পিটারসেন সিএসএকে পরামর্শ দিয়েছেন, টিম ম্যানেজার হিসেবে সাবেক ক্রিকেটার মার্ক বাউচারকে নিয়োগ দেওয়া হয়।