ইউরোপে ক্যাম্প হচ্ছে না মেয়েদের

প্রকাশ: ০৬ আগস্ট ২০১৯      

ক্রীড়া প্রতিবেদক

১৫ সেপ্টেম্বর থাইল্যান্ডে শুরু হবে এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের মূল পর্ব। দুটি গ্রুপে মোট আটটি দল অংশ নেবে এই আসরে। মেয়েদের এই টুর্নামেন্টটি অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপের বাছাইপর্বও। সেরা দুটি দল নিশ্চিত করবে অনূর্ধ্ব-১৭ নারী বিশ্বকাপের মূল পর্বে। সেখানেই চোখ বাংলাদেশের মেয়েদের। গ্রুপ 'এ'-তে বাংলাদেশ খেলবে থাইল্যান্ড, জাপান, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে। প্রথম দিনেই স্বাগতিক থাইল্যান্ডের মুখোমুখি হবে গোলাম রব্বানী ছোটনের দল। এএফসি চ্যাম্পিয়নশিপে ভালো করার জন্য কয়েকটি পরিকল্পনা হাতে নিয়েছিল বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। তার মধ্যে অন্যতম হলো ইংল্যান্ডে এক মাসের প্রস্তুতি ক্যাম্প। কিন্তু ইউরোপে ক্যাম্প করা হচ্ছে না মারিয়া মান্ডা-মনিকা চাকমাদের। সেই পরিকল্পনা বাতিল হওয়ার পর ঘরোয়া ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থা চেয়েছিল ভিয়েতনাম, জাপান ও কোরিয়ায় গিয়ে প্রস্তুতি ক্যাম্প করা। সেটাও সম্ভব নয় বলে। কারণ অর্থ সংকট।

সংশ্নিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ইংল্যান্ডে মেয়েদের ক্যাম্প করার জন্য বাফুফের বাজেট ছিল দুই কোটি টাকা। কিন্তু এই অর্থ জোগাড় করা সম্ভব হয়নি। তাই ইউরোপ সফর বাতিল করে এখন এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপের আয়োজক থাইল্যান্ডে গিয়ে এক সপ্তাহের প্রস্তুতি ক্যাম্প করাতে চায় বাফুফে। এ প্রসঙ্গে ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ জানান, 'ইউরোপে ক্যাম্প করা থেকে সরে এসেছি আমরা। এখন থাইল্যান্ডে প্রস্তুতি ক্যাম্প করার পরিকল্পনা নিয়েছি। সেখানে এক সপ্তাহের প্রস্তুতি হবে। মেয়েরা আগেই চলে যাবে।'

চ্যাম্পিয়নশিপের মূল পর্বের প্রতিপক্ষরা সবাই বাংলাদেশের চেয়ে অনেক শক্তিশালী। প্রায় সব দলই ইউরোপসহ বিভিন্ন দেশে গিয়ে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেছে এবং সামনে খেলবে। কিন্তু আঁখি খাতুন-তহুরা খাতুনরা ঘরের মাঠে শুধু অনুশীলন করছেন। ইউরোপে গিয়ে ক্যাম্প করতে না পারায় কিছুটা হতাশ মেয়েদের কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন, 'আরও বেশি প্রস্তুতি হলে ভালো হতো। কারণ আমাদের প্রতিপক্ষ দলগুলো এরই মধ্যে দু-তিনটি দেশে খেলে ফেলেছে। ইউরোপে ক্যাম্প হলে প্রস্তুতিটা সবচেয়ে ভালো হতো। আমরা ফেডারেশনকে বলেছি বলেই তো উনারা চেষ্টা করেছেন। এখন না হলে তো আর করার কিছু নেই।'

গত মাস থেকে অনুশীলন শুরু করেছে মেয়েরা। ১০ আগস্ট পর্যন্ত চলবে ট্রেনিং। ঈদে চার দিনের ছুটি কাটিয়ে ১৫ তারিখ থেকে আবারও অনুশীলন শুরু করবেন তহুরারা। 'অনুশীলন ভালো হচ্ছে। মেয়েরা কঠোর ট্রেনিং করেছি। ঘরের মাঠে তো সবাই প্রস্তুতি নিতেছে। প্রতিপক্ষ দলগুলো আমাদের চেয়ে এমনিতেই তো আগানো। প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে তারা প্রস্তুতিটা আরও ভালো নিয়েছে'- বলেন কোচ ছোটন। আট দল থেকে সেরা দুই দলের একটি হওয়া অনেক কঠিন। তা ভালো করেই জানা বাংলাদেশ কোচের, 'সেরা দুইয়ে যাওয়া অনেক কঠিন। এমনিতে সবাই আগানো, আবার সবার প্রস্তুতিও ভালো। আমাদের মেয়েরা গতবারের চেয়ে এবার ভালো করবে। মেয়েরা অনেক আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছে। তবে সেখানে খেলতে যাওয়ার আগে শক্তিশালী দলের বিপক্ষে খেলে যেতে পারলেই ভালো হতো।'