'ক্রীড়াক্ষেত্রে শেখ কামাল পদক চালু হবে'

প্রকাশ: ০৬ আগস্ট ২০১৯      

ক্রীড়া প্রতিবেদক

শৈশব থেকে ফুটবল, ক্রিকেট, হকি, বাস্কেটবলসহ বিভিন্ন খেলাধুলায় উৎসাহী ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বড় ছেলে শেখ কামাল। স্বাধীনতার পর ক্রীড়া সংগঠক হিসেবে কাজ করেছিলেন তিনি। উপমহাদেশের অন্যতম ক্রীড়া সংগঠন আবাহনী লিমিটেডের প্রতিষ্ঠাতা শেখ কামাল। গতকাল ছিল তার ৭০তম জন্মবার্ষিকী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাই শেখ কামালের জন্মদিন উপলক্ষে আবাহনী ক্লাব মাঠে 'শেখ কামাল :উদ্দীপ্ত তারুণ্যের দূত' শীর্ষক সংবাদ চিত্রপ্রদর্শনীর আয়োজন করে জয়ীতা প্রকাশনী। সেই অনুষ্ঠানে এসে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল ঘোষণা করেন ক্রীড়া ক্ষেত্রে শেখ কামাল পদক চালু করা হবে, "শেখ জামাল শুধু খেলাধুলায় পারদর্শীই ছিলেন না, ক্রীড়া সংগঠক হিসেবেও ছিলেন অনন্য একজন। বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনে তার অবদান ছিল অসামান্য। তার এই অবদান স্মরণ করতে 'শেখ কামাল পদক' চালু করার চিন্তা চলছে।"

মুক্তিযোদ্ধা, ক্রীড়া সংগঠক ও আবাহনীর প্রতিষ্ঠাতা শেখ কামালের জন্মদিনে তার কর্মময় জীবনের অর্ধশতাধিক আলোকচিত্র নিয়ে দিনব্যাপী প্রদর্শনী আয়োজন করে জয়ীতা প্রকাশনী। প্রদর্শনী উদ্বোধনের পর একটি স্মারক গ্রন্থ উন্মোচন করেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী। আমন্ত্রিত অতিথিদের নিয়ে প্রদর্শনী ঘুরে দেখেন জাহিদ আহসান রাসেল। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন 'শেখ কামাল :উদ্দীপ্ত তারুণ্যের দূত' স্মারক গ্রন্থটির সম্পাদক কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ চেয়ারম্যান চৌধুরী নাফিজ সরাফাত, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ক্রীড়া সম্পাদক ও আবাহনী ক্রীড়া চক্রের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক হারুনূর রশিদ, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি কাজী মোহাম্মদ সালাউদ্দিন, স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলের ম্যানেজার তানভীর মাজহার তান্না এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় যুব ও ক্রীড়া উপকমিটির সদস্য মোহাম্মদ ফায়সাল আহসান উল্লাহ প্রমুখ।

১৯৪৯ সালের ৫ আগস্ট তৎকালীন গোপালগঞ্জ মহকুমার টুঙ্গিপাড়া গ্রামে জন্ম হয় শেখ কামালের। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ঘাতকের বুলেটের আঘাতে নিহত হয়েছিলেন তিনি।