টেনশনে শেখ জামালের ক্রিকেটারদের চুল ছেঁড়ার অবস্থা। তীরে এসে তরী ডুববে নাকি! দোলেশ্বর শেষ জুটি যে অবিশ্বাস্যভাবে ম্যাচ বের করে নিয়ে যাচ্ছে। ১১ বলে দরকার ১১ রান! কিন্তু দুর্দান্ত ব্যাট করতে থাকা সালাউদ্দিন শাকিল শেষ বেলায় এসে ভুল করে বসলে হাঁফ ছেড়ে বাঁচে শেখ জামাল। পেসার রবিউলের বলে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে বসেন শাকিল। সে সঙ্গে শেষ হয়ে যায় দোলেশ্বরের অসম্ভব এক জয়ের স্বপ্ন। শেষ উইকেটে আরাফাত সানি ও শাকিল ৬৭ রান যোগ করে জাগিয়ে তুলেছিলেন সে স্বপ্ন। ১০ রানের জয়ে শিরোপার দৌড়ে টিকে রইল শেখ জামাল। শেষ রাউন্ডে রূপগঞ্জের কাছে আবাহনী হারলে ও শেখ জামাল জিতলে তিন দলের পয়েন্ট সমান হয়ে যাবে। এমন পরিস্থিতি হলে হেড টু হেডে শিরোপা নির্ধারিত হবে। যেখানে এগিয়ে শেখ জামাল।

অথচ ঘণ্টাখানেক আগে এমন পরিস্থিতির চিন্তাও করেনি কেউ। বিকেএসপিতে ১৮৪ রান তাড়া করতে নেমে ১০৬ রানেই ৯ উইকেট হারিয়ে বসছিল দোলেশ্বর। তখন শেষ জামালের জয়কে সময়ের ব্যাপার বলেই মনে হচ্ছিল। কিন্তু তখনই রুখে দাঁড়ান আরাফাত ও সালাউদ্দিন শাকিল। টপ অর্ডার যে কাজটি পারেনি তারা দু'জন বোলার ব্যাট হাতে সে কাজটা প্রায় করে ফেলেছিলেন। শেষ বেলার এই রোমাঞ্চটুকু বাদ দিলে ফতুল্লায় গতকাল দাপট ছিল শেখ জামালের তানভীর হায়দারের। তার অলরাউন্ড নৈপুণ্যেই মহাগুরুত্বপূর্ণ এ জয়টি পেয়েছে শেখ জামাল। ব্যাট হাতে অপরাজিত ৪৩ রানের ইনিংস খেলেন তিনি। এরপর লেগস্পিনে তো আরও বড় ভেলকি দেখিয়েছেন। তার স্পিনে বিভ্রান্ত হয়েই মাত্র ৯ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে কার্যত ছিটকে যায় দোলেশ্বর।

মন্তব্য করুন