বঞ্চিত বানভাসিদের ঘরে ঈদের খুশি

আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ও সুহৃদ সমাবেশ উদ্যোগ

প্রকাশ: ২০ আগস্ট ২০১৯      

বঞ্চিত বানভাসিদের ঘরে ঈদের খুশি

উলিপুর উপজেলার হাতিয়া ইউনিয়ন পরিষদে দরিদ্র মানুষের হতে তুলে দেওয়া হয় কোরবানির মাংস

আনন্দ বিলিয়ে দিলে তা বেড়ে যায়। আর তাই ঈদের আনন্দে সবার মধ্যে বিলিয়ে দিতে সুবিধাবঞ্চিত ও বানভাসি মানুষের জন্য কোরবানির উদ্যোগ নেয় আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ও সমকাল সুহৃদ সমাবেশ। কুড়িগ্রামের উলিপুর ও চিলমারী, গাইবান্ধা সদর ও ফুলছড়ি, রাজশাহীর পুঠিয়া এবং কিশোরগঞ্জ সদর ও মিঠামইনে যৌথভাবে উদ্যোগ নেওয়া হয়



কিশোরগঞ্জ, মিঠামইন

সাইফুল হক মোল্লা দুলু

আনন্দ ভাগাভাগি করে নেওয়ার অন্যরকম আনন্দঘন এক অনুষ্ঠানে আগত দরিদ্র নারী-পুরুষের পদচারণায় মুখর হয়ে ওঠে বিয়াম স্কুল প্রাঙ্গণ। গত ১৩ আগস্ট ঈদুল আজহা উপলক্ষে দুস্থ ও দরিদ্র মানুষের মধ্যে চারটি গরুর মাংস বিতরণ করা হয়।

এর আগে সমকাল সম্পাদক গোলাম সারওয়ারের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে নীরবতা পালনের মধ্য দিয়ে প্র্রয়াত সম্পাদক সাংবাদিকতার বাতিঘরখ্যাত গোলাম সারওয়ারের জন্য বিশেষ মোনাজাত করে তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করা হয়।

কার্যক্রমে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী, পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম, ছড়াকার সংসদের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম জাহান, সৈয়দ রেজওয়ানউল্লাহ বাশার, সুহৃদ সভাপতি হারুন-আল-রশীদ প্রমুখ।

সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী বলেন, ইসলাম মানবতার কথা বলে। প্রতিবেশীকে অভুক্ত রেখে নিজে ভালো খাওয়ার শিক্ষা ইসলামে নেই। সুহৃদ এবং আল খায়ের ফাউন্ডেশন ইসলামের সেই স্পিরিট নিয়ে দরিদ্র নারী-পুরুষের মধ্যে ঈদের আনন্দ বিলিয়ে দিতে কোরবানির মাংস দেওয়ার যে উদ্যোগটি বাস্তবায়ন করল তা অবশ্যই অভিনন্দনযোগ্য।

মাশরুকুর রহমান খালেদ বলেন, আমি আনন্দিত ও অভিভূত। ব্যতিক্রমধর্মী এমন একটি ভালো ও সুন্দর কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য তিনি সবাইকে ধন্যবাদ জানান।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক আলম সারোয়ার টিটু, সাইফুল মালেক চৌধুরী, সৈয়দ রেজনুল্লাহ বাশার, আসলামুল হক আসলাম, সুহৃদের জহিরুল ইসলাম, সাইদুর রহমাস সাঈদ, ওমর ফারুক, আদিব, মামুন, অলিক, রিয়া প্রমুখ।

এর আগে ১২ আগস্ট ৮টি গরু কোরবানি দিয়ে মিঠামইন উপজেলার হাওরের পাঁচ শতাধিক দরিদ্র নারী-পুরুষের মধ্যে মাংস বিতরণ করা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন রাষ্ট্রপতির পুত্র রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আছিয়া আলম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রভাংশু সোম মহান ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জাকির রাব্বানী প্রমুখ। দরিদ্র ও দুস্থ মানুষ কোরবানির মাংস পেয়ে এক অনাবিল ঈদ আনন্দ নিয়ে ফিরে যান যার যার ঘরে।

রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক এমপি বলেন, আল খায়ের ফাউন্ডেশন ও সমকাল সুহৃদ হাওরের দরিদ্র জনগোষ্ঠীর কথা সবসময় মনে রাখে। সেজন্য হাওরবাসী তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ। হাওরের জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমি তাদের এই মানবিক কর্মসূচির পরিধি আরও বাড়িয়ে বেগবান করবে বলে আশা করি। হাওরে কোরবানির মাংস বিতরণ অনুষ্ঠানে তারেক মাহমুদ সজীব বলেন, আল খায়ের ফাউন্ডেশন মানবিক আবেদনে সবসময় দরিদ্র জনগণের পাশে থাকে। ভবিষ্যতে আল খায়ের ফাউন্ডেশন কিশোরগঞ্জে কাজের পরিধি আরও বৃদ্ধি করবে বলে সবাইকে আশ্বস্ত করেন।

হকিশোরগঞ্জ অফিস, কিশোরগঞ্জ



গাইবান্ধা

উজ্জল চক্রবর্ত্তী

১৪ আগস্ট গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার গজারিয়া ইউনিয়নের ফুলছড়ি সিনিয়র আলিম মাদ্রাসা নতুন মাঠে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ফুলছড়ি উপজেলার গজারিয়া, গলনা চর, বাউসী ও ফজলুপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন চরাঞ্চলের বন্যাদুর্গত মানুষ, গাইবান্ধা সদরের বন্যাকবলিত দক্ষিণ ধানঘড়া, বানিয়ারজান, বোয়ালী, বাদিয়াখালী, সাঘাটা উপজেলার ভরতখালী ইউনিয়নের কুকড়াহাট সাধুর আশ্রম, উল্যাবাজার ও দক্ষিণ উল্যা গ্রামের ৯০০ পরিবারের মধ্যে কোরবানির মাংস বিতরণ করা হয়। কার্যক্রম উদ্বোধন করেন ফুলছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আবদুল হালিম টলস্টয়। এ সময় অন্যদের মধ্যে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গাইবান্ধার সিভিল সার্জন ডা. এবিএম আবু হানিফ, ফুলছড়ি থানার ওসি তদন্ত মো. মশিউর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা শহিদুল ইসলাম রাজা, ফুলছড়ি উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান, গজারিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. শামসুল আলম, ফুলছড়ি হাটবাজার বণিক সমিতির সিনিয়র সহসভাপতি মাদ্রাসা গভর্নিং বডির সভাপতি হাবিবুর রহমান হবি, ফুলছড়ি সিনিয়র আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা সিরাজুল ইসলাম, আল খায়ের ফাউন্ডেশনের কান্ট্রি ম্যানেজার তারেক মাহমুদ সজীব, সিনিয়র প্রোগ্রাম অফিসার মো. ইতিরাবা হোসেন খান, মো. আবু সাইদ, সিনিয়র ক্যামেরাপারসন অনিল পাল, জেলা মুসলিম ম্যারেজ রেজিস্ট্রার ও কাজী সমিতির সভাপতি মাওলানা কাজী মফিজুল হক আকন্দ, থানা জামে মসজিদের ইমাম প্রভাষক মাওলানা আমিনুল ইসলাম, সুহৃদ সমাবেশ গাইবান্ধার উপদেষ্টা মো. আলম মিয়া, সহসভাপতি কবি হাফিজুল হিলালী বাবু, প্রভাষক মো. আতাউর রহমান, সদস্য মোস্তফা হোসেন, খবির উদ্দিন, রবিউল ইসলাম রবি, ফুলছড়ি শাখা সুহৃদের সভাপতি ইসমাইল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক ফারুক হোসেন. জেলা রোভারের ডিআরএসএল তামজিদুর রহমান তুহিন, সমকালের জেলা প্রতিনিধি উজ্জল চক্রবর্ত্তী প্রমুখ।

'ঘরে ঘরে ঈদের খুশি' স্লোগানের আলোকে সুহৃদরা বানভাসি দুর্গত মানুষের সঙ্গে কথা বলেন এবং তাদের ঘরে ঘরে গিয়ে দুর্দশার কথা শোনেন। স্লিপ বিতরণ করেন এবং মাদ্রাসা মাঠ ও পরে নৌকা থেকে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেন। প্রবল বৃষ্টি উপেক্ষা করে লোকজন কোরবানির মাংস গ্রহণ করে।

হগাইবান্ধা প্রতিনিধি



পুঠিয়া

সৌরভ হাবিব

পুঠিয়ায় ১৩ আগস্ট সকালে পুঠিয়ায় চারটি গরু কোরবানি করা হয়। এ সময় প্রায় তিনশ' দুস্থ মানুষের মাঝে মাংস বিতরণ করা হয়। মাংস পেয়ে হাসি ফোটে এসব মানুষের মাঝে। মাংস বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পুঠিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও সুহৃদ সমাবেশ পুঠিয়া শাখার উপদেষ্টা জিএম হিরা বাচ্চু, সমকালের রাজশাহী ব্যুরো প্রধান সৌরভ হাবিব, সুহৃদ সোনিয়া তাসনীম, মনিরুল ইসলাম, সায়েম সাগর, আশরাফুল ইসলাম, শরিফুল ইসলাম টিপু প্রমুখ।

মাংস পেয়ে হকার সুজন মিয়া বলেন, ৩০ বছর ধরে পুঠিয়ায় বসবাস করি। কিন্তু আজ পর্যন্ত এমন উদ্যোগ দেখিনি। গরু জবাই করে এভাবে মাংস বিলি করায় অনেকেই পরিবার নিয়ে প্রাণভরে খেতে পারবে। এই কাজের ধারাবাহিকতা যেন প্রতি বছরই থাকে।

হরাজশাহী ব্যুরো



চিলমারী

নাজমুল হুদা পারভেজ

'কাইল সমকাল গরুর গোশত দিছিল জন্যে আইজ কোরবানির গোশত মুখত উঠিল'- কথাগুলি বলছিলেন ৯৯ বছর বয়সী বৃদ্ধা সাহেরা বেওয়া। গত মঙ্গলবার, ঈদুল আজহার একদিন পর কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলায় বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ও দরিদ্র মানুষের মাঝে ১০টি গরু কোরবানি করে মাংস বিতরণের সময় এ কথা বলছিলেন তিনি। মাংস হাতে পেয়েই আনন্দের হাসি ফুটে উঠেছিল বৃদ্ধার চোখেমুখে।

উপজেলার কালাইকাটা গ্রামের মৃত মনির উদ্দিনের, থানাহাটের বাচ্চু মিঞা, নয়াবাড়ী গ্রামের আইজল হক, বহরের ভিটা গ্রামের নজির হোসেনসহ অনেকেই তাদের ভালোলাগা প্রকাশ করে সমকাল ও আল খায়ের ফাউন্ডেশনের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। উপজেলা বন বিভাগ চত্বরে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ দুস্থ ৬২৭ পরিবারের মাঝে ১০টি কোরবানির গরুর মাংস বিতরণ করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি চিলমারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শওকত আলী সরকার বীরবিক্রম বলেন, এবারের ভয়াবহ বন্যায় উপজেলার প্রতিটি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এই ঈদে অনেকের পক্ষেই মাংস কিনে খাওয়া সম্ভব হয়নি। এসব দুস্থ মানুষের মুখে কোরবানির মাংস তুলে দিয়ে আল খায়ের ফাউন্ডেশন ও দৈনিক সমকাল সত্যিই চিলমারীবাসীর প্রশংসা কুড়িয়েছে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন চিলমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহ মো. শাসছুজ্জোহা, সাংবাদিক নজরুল ইসলাম সাবু, গোলাম মাহাবুব, নুরুল আমিন সরকার, সাওরাত হোসেন সোহেল, জিয়াউর রহমান জিয়া, নাজমুল হুদা পারভেজ, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের গোলাম মোস্তফা, ইঞ্জিনিয়ার সরদার সায়িদ আহমেদ, চিলমারী থানা অফিসার ইনচার্জ আমিনুল ইসলাম, থানাহাট ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুর রাজ্জাক মিলন প্রমুখ।

হচিলমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি

উলিপুর

মোন্নাফ আলী

ঈদের দিন বলে কিছু নেই যাদের জীবনে, তাদের কাছে ঈদের দিনটিও প্রতিদিনের মতো মনে হয়। সেসব মানুষ সেদিন জড়ো হয়েছে কোরবানির মাংস নেওয়ার জন্য। সব প্রক্রিয়া শেষে হাতে হাতে মাংস পেয়ে বেজায় খুশি বিভিন্ন চরের ভিক্ষুক ও হতদরিদ্র মানুষগুলো। তারা কোনো দিন এভাবে মাংস পায়নি। মাংস পাবে, এটা কোনো দিন ভাবেওনি। সত্তর বছর বয়সী বছিরন বেওয়া কোরবানির মাংস পাবে- সেই আশায় লাঠিতে ভর করে এসেছেন হাতিয়া ইউপি মাঠে। মাংসের প্যাকেট হাতে পেয়ে খুশিতে যেন আত্মহারা। বিতরণকারীর মাথায় ও গায়ে হাত বুলিয়ে দোয়া করলেন- ভিক্ষার বিশ বছরে জীবনে শুনি নাই গোশত ইলিপ দেয়। খুশিতে বলছিলেন, আজক্যা গোশত আন্না করি, পেট ভরি ভাত খামো বাবা। ১০টা ট্যাকা দে মসল্লা কিনিম। কথাগুলো বলছিলেন নয়াবাড়া গ্রামের মৃত জবাবুরের স্ত্রী বছিরন বেওয়া। এমন প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করলেন হাতিয়া ভবেশগ্রামের মোর্শেদা বেগম, আলিজন বেওয়া, সোনাভান বিবি ও আকালু শেখসহ অনেকে।

গত ১০ আগস্ট আল-খায়ের ফাউন্ডেশন ও সমকালের যৌথ উদ্যোগে উলিপুরে ১০টি গরু কোরবানি করে। ঈদের মাংসবঞ্চিত ৭শ' দিনদুঃখী, হতদরিদ্র, প্রতিবন্ধী দিনভিখারি ও বানভাসি মানুষদের জনপ্রতি ১ কেজি করে মাংস প্রদান করা হয়। এ মাংস পেয়ে সবাই হাসিমুখে বাড়ি ফিরে যান। মাংসপ্রাপ্তরা হলেন অধিকাংশই দিনভিখারি, পঙ্গু ও প্রতিবন্ধী। উপজেলার হাতিয়া, বজরা ও গুনাইগাছ এবং পৌরসভার নারিকেলবাড়ি এলাকায় এসব মাংস বিতরণ করা হয়।

মাংস বিতরণের উদ্বোধন করেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা গোলাম হোসেন মন্টু। আল খায়ের ফাউন্ডেশনের সিনিয়র অফিসার ইসতিয়াক হোসেন, সিনিয়র অফিসার আবু হোসেন, হাতিয়া ইউপি চেয়ারম্যান বিএম আবুল হোসেন, প্রাণিসম্পদ বিভাগের মাঠপরিদর্শক গোলাম হোসেন, স্বাস্থ্য বিভাগের স্যাকমো মো. শরিয়ত উল্লা, হাতিয়া আওয়ামী লীগের সম্পাদক রফিকুল ইসলাম বাদশা, উলিপুর সুহৃদ সমাবেশের সভাপতি খোরশেদ আলম ও সমকাল উলিপুর প্রতিনিধি মোন্নাফ আলী প্রমুখ।

হউলিপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি