লোহাগাড়ায় বিদ্যালয় ঘেঁষে ইটভাটা, ধোঁয়ায় দুর্ভোগ

প্রকাশ: ০৭ জুলাই ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

লোহাগাড়ায় বিদ্যালয় ঘেঁষে ইটভাটা, ধোঁয়ায় দুর্ভোগ

লোহাগাড়ার চরম্বা ইউনিয়নের মাইজবিলা অলি আহমদ বীর বিক্রম উচ্চ বিদ্যালয়ের সীমানা ঘেঁষে গড়ে উঠেছে ইটভাটা -সমকাল

আইনের তোয়াক্কা না করে লোহাগাড়া উপজেলার চরম্বা ইউনিয়নের মাইজবিলা অলি আহমদ বীর বিক্রম উচ্চ বিদ্যালয়ের সীমানা ঘেঁষে গড়ে উঠেছে ইটভাটা। ইটভাটার ধুলা ও ধোঁয়ার মধ্যে চলছে শিক্ষা কার্যক্রম। এতে দুর্ভোগ বেড়েই চলেছে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের। এ ইটভাটা বন্ধের জন্য বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন করেছে। প্রশাসনকে অবহিত করেছে। তবে এখনও কোনো কাজ হয়নি। বিদ্যালয় ঘেঁষে ইটভাটা চালু থাকায় শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যঝুঁকি রয়েছে বলে অভিযোগ করেন অভিভাবকরা।

প্রসঙ্গত, বিদ্যালয়টি ১৯৯৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হলেও ইটভাটাটি চালু হয় ২০১০ সালে।

গত ১৯ জুন সরেজমিন পরিদর্শনে দেখা যায়, বিদ্যালয় ঘেঁষে এসবিএন (শাহ আমানত ব্রিকস) নামে ইটভাটাটির কার্যক্রম চলছে। ইটভাটায় ইট পোড়ানোর ধোঁয়ার কারণে শিক্ষার্থীদের ত্রাহি অবস্থা। ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন (নিয়ন্ত্রণ) আইন ২০১৩ অনুযায়ী, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এক কিলোমিটারের মধ্যে কোনো ভাটা স্থাপন করা যায় না। অথচ এ আইন মানা হচ্ছে না।

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফারজানা সুলতানা শিফা ও মো. মিনহাজ বলে, ইটভাটার ধোঁয়া ও গাড়ির শব্দে আমরা অতিষ্ঠ। সম্প্রতি আমরা স্কুল গেট সংলগ্ন রাস্তায় ইটভাটা বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন করেছি।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুল মান্নান জানান, স্কুল ঘেঁষে ইটভাটা চালু থাকায় বিদ্যালয়ের পাঠদান কার্যক্রম নানাভাবে ব্যাহত হচ্ছে। স্থানীয় প্রশাসনকে এ ব্যাপারে অবহিত করা হয়েছে। চরম্বা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান বলেন, স্কুলের প্রাচীর ঘেঁষে ইটভাটা স্থাপন করায় শিক্ষার পরিবেশ মারাত্মকভাবে বিঘ্নিত হচ্ছে।

লোহাগাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তৌছিফ আহমেদ বলেন, 'ইটভাটার বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়ার পর সরেজমিন তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পেয়েছি। এক মাসের মধ্যে ইটভাটা বন্ধ করে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আইন না মানলে পরে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।'

লোহাগাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ইউএইচএফপিও) ডা. মো. হানিফ জানান, বিদ্যালয় ঘেঁষে ইটভাটা তৈরির ফলে ধোঁয়া ও ধুলার কারণে শিক্ষার্থীদের শ্বাসকষ্ট, হাঁপানিসহ বিভিন্ন এলার্জিজনিত রোগের প্রকোপ বৃদ্ধি পেতে পারে।

এসবিএন ইটভাটার মালিক নুরুল আলম জানান, এই ইটভাটা সম্প্রতি তারা কিনে নিয়েছেন। উপজেলা প্রশাসন এটি বন্ধে রাখতে নির্দেশ দিলেও চালু রেখেছেন।