চন্দনাইশে বাল্যবিবাহ ৬ জনকে সাজা

প্রকাশ: ০৭ জুলাই ২০১৯      

চন্দনাইশ সংবাদদাতা

চট্টগ্রামের চন্দনাইশে বাল্যবিবাহ দেওয়ার অপরাধে ও গণ উপদ্রবের দায়ে ৬ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। গত ২ জুলাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আ.ন.ম বদরুদ্দোজা ভ্রাম্যমাণ আদালত এ সাজা দেন। পুলিশ তাদের জেলহাজতে প্রেরণ করে।

জানা যায়, গত ২ জুলাই উপজেলার সাতবাড়িয়া পলিয়াপাড়ায় বাল্যবিবাহ আয়োজনের সংবাদ পেয়ে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় এলাকার মৃত কবির আহমদের স্ত্রী কনের মা রেনু আক্তারকে (৪৫) মেয়ে বিয়ের উপযুক্ত হয়েছে কি-না প্রমাণ দেখাতে বললে তিনি তা দেখাতে ব্যর্থ হন। এ সময় তাকে মেয়েকে বাল্যবিবাহ দেওয়ার অপরাধে ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও বিয়ের বর উপজেলার চৌধুরীপাড়ার মো. সিরাজুল ইসলামের ছেলে মোর্শেদুল আলম প্রকাশ সেলিমকে (৩৮) ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন।

এ সময় সাতবাড়িয়া নগরপাড়ার আবদুর রশিদের ছেলে বাবুল আহমদকে (২২) দণ্ডবিধির ৫০৯ ধারায় ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডের অপরাধে দণ্ডবিধির ২৯১ ধারায় উপজেলার ছৈয়দাবাদের মৃত নন্না মিয়ার ছেলে মো. জাফরকে ৩ মাস, জাফরাবাদের শাহ আলমের ছেলে জিয়াউল হক জিয়াকে (২০) ১৫ দিন, মৃত হাজী সেলিম উদ্দীনের ছেলে মো. সৈকতকে (১৮) ১৫ দিন বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন।

জুয়ার দায়ে ১১ জনকে জরিমানা : চন্দনাইশে প্রকাশ্যে জুয়া খেলার অপরাধে ১১ জনকে ২ হাজার ২০০ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

জানা যায়, চন্দনাইশ থানার পুলিশ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে প্রকাশ্যে জুয়া খেলারত অবস্থায় ১১ জনকে আটক করে। পরে তাদের ২ জুলাই সকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আ.ন.ম বদরুদ্দোজা ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করা হলে তাদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সত্য প্রমাণিত হওয়ায় প্রত্যেককে ২০০ টাকা করে ২ হাজার ২০০ টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়। অর্থদণ্ডপ্রাপ্তরা হলো উপজেলার কাঞ্চননগরের মৃত গুনু মিয়ার ছেলে মো. মোসলেম উদ্দীন (৪০), মৃত নুর বক্সের ছেলে শফিউল আহমেদ (৬০), মৃত মোজাফফর আহমদের ছেলে মোঃ সাহাব উদ্দীন (৪০), নুরুল ইসলামের ছেলে রিয়াজ উদ্দীন (২৭), মৃত মো. আলীর ছেলে আবদুল আলিম (৫২), উপজেলার সাতবাড়িয়া জামতল এলাকার মৃত আবদুস সামাদের ছেলে মোজাফ্‌ফর আহমদ (৪৫), মৃত ইসহাক মিয়ার ছেলে মো. রুবেল (২৮), নুরুল আলমের ছেলে মোজাম্মেল হক (২০), নুরুল ইসলামের ছেলে আনোয়ার হোসেন (২১), আহমদ কবিরের ছেলে রহিম উদ্দীন (২৬), মৃত নজির আহমদের ছেলে শাহেদুল হক (৩৫)।

এদিকে জিআর গ্রেফতারি পরোয়ানা মূলে উপজেলার পশ্চিম বৈলতলী এলাকার মৃত আলতাফ মিয়ার ছেলে আবদুল গফুরকে (৬০) আটক করা হয়।

চন্দনাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কেশব চক্রবর্ত্তী প্রকাশ্যে জুয়া খেলার অপরাধে ১১ জনকে অর্থদণ্ড ও গ্রেফতারি পরোয়ানামুলে একজনকে আটকের সত্যতা সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন।