'মানিক চৌধুরীর রাজনৈতিক লোভ ছিল না'

প্রকাশ: ০৭ জুলাই ২০১৯      

'মানিক চৌধুরীর রাজনৈতিক লোভ ছিল না'

মানিক চৌধুরীর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানান স্মৃতি সংসদের নেতারা- সমকাল

'স্বাধীনতা-সংগ্রামী মানিক চৌধুরীর শুধু আগরতলা মামলায় অভিযুক্ত হিসাবেই বিবেচনা করলে চলবে না। মনে রাখতে হবে যুক্তফ্রন্ট গঠনের সময় থেকে তিনি মানুষের মুক্তির জন্য রাস্তায় নেমেছিলেন এবং মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত তার পথচলা থামেনি। স্বৈরাচারী শাসকেরা জানতেন তিনি কেমন, যে কারণে বঙ্গবঙ্গু হত্যার পর তাজউদ্দীন আহমদের সঙ্গে তাকেও গ্রেফতার করা হয়।'

মানিক চৌধুরীর স্মৃতি সংসদের উদ্যোগে গত ৩০ জুন বিকাল প্রয়াতের জন্মস্থান চট্টগ্রাম জেলার পটিয়া উপজেলার হাবিলাসদ্বীপ গ্রামে ৩৯তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত স্মৃতি সংসদের সভাপতি বিপ্লব দাশগুপ্তের সভাপতিত্বে ও সংগঠনের সাধারণ ত্রিদিব কুমার দত্তের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি কাঞ্চন মজুমদার, হাবিলাসদ্বীপ ঈশ্বরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা মজুদার সভাপতি স্বপন চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক প্রদর্শক অশোক চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক দীপক সরকার, ডা. হারাধন দত্ত, লিটন মজুমদার বাবু, প্রধান শিক্ষক সুদর্শন দেব, কামরুল হাসান, অনিমেষ বড়ূয়া, দোলন বড়ূয়া, সোমা চৌধুরী, শিল্পী চৌধুরী, তাপস দাশ, সৈকত দেব, গীতা চন্দ, গবী আহমদ প্রমুখ।

স্মরণ সভায় বক্তারা বলেন, 'বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অন্যতম দাতা, স্বাধীনতা সংগ্রামের বিস্মৃত নায়ক মানিক চৌধুরী

ছিলেন স্বাধীনতা সংগ্রামের ক্ষেত্র প্রস্তুতকারী ব্যক্তিত্ব। তার আজীবন সংগ্রাম ছিল স্বাধীনতা এবং শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগকে প্রতিষ্ঠিত করার।' নেতারা তার প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে তাকে শ্রদ্ধা জানান। বিজ্ঞপ্তি