প্রিয় শিক্ষার্থীরা, আজ তোমাদের বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় থেকে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন নিয়ে আলোচনা করা হলো।

(গত আলোচনা পর)

সংক্ষিপ্ত প্রশ্ন

১৯। অটিস্টিক শিশুরা কোনো খেলনা পেলে কী করে?

উত্তর:অটিস্টিক শিশুরা কোনো খেলনা পেলে তা দিয়ে খেলে না; বরং শক্ত করে ধরে বসে থাকে।

২০। আমরা কোথা থেকে মানবাধিকারগুলো পেয়ে থাকি?

উত্তর:আমরা পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্র থেকে মানবাধিকারগুলো পেয়ে থাকি।

২১। শিশুশ্রম কী?

উত্তর:কোনো শিশুকে দিয়ে শ্রমের বিনিময়ে অর্থোপার্জনমূলক কাজ করানোই হলো শিশুশ্রম।

২২। মানবাধিকার কেন প্রয়োজন?

উত্তর:জাতি, ধর্ম, বর্ণ, বয়স, নারী-পুরুষ আর্থিক অবস্থাভেদে বিশ্বের সব দেশের সব মানুষের অধিকার রক্ষার জন্য মানবাধিকার প্রয়োজন।

২৩। মানবাধিকার লঙ্ঘন রোধের সবচেয়ে ভালো উপায় কোনটি?

উত্তর :মানবাধিকার লঙ্ঘন রোধের সবচেয়ে ভালো উপায় হলো জনসচেতনতা সৃষ্টি।

২৪। মানবাধিকার রক্ষায় তুমি কী কাজ করতে পার?

উত্তর:আমি নিজে মানবাধিকার রক্ষায় কাজ করব। এ বিষয়ে অন্যদের সচেতন করব এবং মানবাধিকারবিরোধী কাজ করতে দেখলে তার প্রতিবাদ করব।

২৫। চাকরির ক্ষেত্রে মেয়েরা ছেলেদের মতো কোন সুবিধাটি পায় না?

উত্তর:চাকরির ক্ষেত্রে মেয়েরা ছেলেদের মতো সমান পারিশ্রমিক পায় না।

২৬। রুমি ও সুমি স্বাধীনভাবে তাদের ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন করে। এটা তাদের কোন ধরনের অধিকারের অন্তর্ভুক্ত?

উত্তর:এটি তাদের মৌলিক মানবাধিকারের অন্তর্ভুক্ত।

২৭। কোন ধরনের শিশুদের দলীয় কাজ করতে সমস্যা হয়?

উত্তর:অটিস্টিক শিশুদের দলীয় কাজ করতে সমস্যা হয়।

২৮। তোমাদের শ্রেণিতে একটি অটিস্টিক শিশু রয়েছে। তুমি তার সঙ্গে কী ধরনের আচরণ করবে?

উত্তর:যেহেতু সে আমার সহপাঠী, তাই তার প্রতি সবসময় সদয় থাকব।

২৯। বাংলাদেশে কত বছরের নিচে শিশুশ্রম বেআইনি?

উত্তর:বাংলাদেশে ১৮ বছরের নিচে শিশুশ্রম বেআইনি।

৩০। অনেক শিশু কেন শিক্ষার অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়?

উত্তর:পরিবারের অসচ্ছলতার কারণে অনেক শিশু শিক্ষার অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়।

৩১। সাধারণত কাদের বিদেশে পাচার করা হয়?

উত্তর:নারী ও শিশুদের বিদেশে পাচার করা হয়।

মন্তব্য করুন