জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে ষষ্ঠ ধাপের ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুই ইউপি সদস্য প্রার্থীর মধ্যে সংঘর্ষ ও হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে হযরত আলী নামে এক ব্যক্তি গুলিবিদ্ধসহ অন্তত পাঁচজন আহত হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার পিংনা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গত বুধবার গভীর রাতে পিংনা নলসন্ধ্যা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার আটটি ইউনিয়নের মধ্যে সাতটিতে পঞ্চম ধাপে ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। আগামী ৩১ জানুয়ারি ষষ্ঠ ধাপে পিংনা ইউপিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। গত ১৪ জানুয়ারি প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়। নির্বাচন ঘিরে চলছে চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্য প্রার্থীদের জমজমাট প্রচার। পিংনা ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য প্রার্থী সুরুজ্জামান সুরু মোরগ ও নুরুল ইসলাম ফুটবল প্রতীক পেয়ে লড়ছেন।

জানা যায়, গতকাল বুধবার গভীর রাতে সুরুজ্জামান সুরুর বাড়িঘরে হামলা চালায় প্রতিপক্ষ নুরুল ইসলাম ও তার লোকজন। এ সময় উভয়ের পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। সংঘর্ষ চলাকালে সুরুজ্জামানের ভাতিজা হযরত আলী (৪০) গুলিবিদ্ধ হয় বলে অভিযোগ করেন সুরুজ্জামান। এতে অন্তত পাঁচজন আহত হন। গুরুতর আহত অবস্থায় হযরত আলীকে প্রথমে সরিষাবাড়ী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অন্যদের স্থানীয় ক্লিনিকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। ঘটনার পর থেকে নুরুল ইসলাম ও তার লোকজনকে বাড়িঘরে পাওয়া যায়নি।

জানতে চাইলে সুরুজ্জামান সুরু অভিযোগ করে বলেন, বুধবার গভীর রাতে প্রতিপক্ষ নুরুল ইসলাম লোকজন নিয়ে তার বাড়িঘরে হামলা চালায়। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। সংঘর্ষে তার ভাতিজা হযরত আলী গুলিবিদ্ধ হন। এ ছাড়া আরও চারজন আহত হয়েছেন। ঘটনার পর থেকে নুরুল ইসলাম ও তার লোকজন বাড়িঘর ছেড়ে গা-ঢাকা দিয়েছে বলেও জানান তিনি।

এ বিষয়ে নুরুল ইসলাম অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এর আগে তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী সুরুজ্জামানের সহযোগিতায় পিংনার নরপাড়ায় দুটি হত্যাকা সংঘটিত হয়েছে। সাধারণ ভোটাররা তাকে ভোট দেবে না তা বুঝতে পেরে তারা নিজেরাই কৌশলে গ গোল সৃষ্টি করে তার ওপর মিথ্যা অভিযোগ আনছে।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মাকসুদ আলম জানান, এ নিয়ে এখনও কেউ অভিযোগ করেনি। ওই ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে বিষয়টি খতিয়ে দেখে আইনগত ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

তারাকান্দি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ আব্দুল লতিফ জানান, ইউপি সদস্য প্রার্থী সুরুজ্জামান সুরু ও নুরুল ইসলামের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে কেউ গুলিবিদ্ধ হয়েছে কিনা তা তদন্তে কাজ করছে পুলিশ।

মন্তব্য করুন