লোহাগড়ায় আব্দুল্লাহ নামের এক পশু চিকিৎসকের হাত-পায়ের রগ কেটে দিয়েছে প্রতিপক্ষ। গত শনিবার স্থানীয় আধিপত্য ও ইউপি মেম্বার প্রার্থী বাছাই নিয়ে বিরোধের জেরে ওই চিকিৎসকের রগ কেটে দেওয়া হয়।

হামলাকারীরা আরও সাতজনকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেছে। আহতদের ঢাকা, খুলনাসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার বাঁকা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, উপজেলার লক্ষ্মীপাশা ইউনিয়নের বাঁকা গ্রামের মিরাজ মোল্যার লোকদের সঙ্গে একই গ্রামের মেম্বার জিরু কাজীর লোকদের মধ্যে বিরোধ চলছে। সম্প্রতি জমি নিয়ে বিরোধ, একটি হত্যা মামলার মীমাংসা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে গ্রামের মেম্বার প্রার্থী বাছাই নিয়ে শনিবার সন্ধ্যার পর উভয়পক্ষের মধ্যে বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বৈঠক শুরুর আগেই মিরাজ মোল্যার নেতৃত্বে ১৫ থেকে ২০ জন রামদা, ছ্যানদা, লাঠিসোটা নিয়ে জিরু কাজী সমর্থিত লোকদের ওপর হামলা চালায়। হামলাকারীরা জিরু কাজীর পক্ষের গ্রামীণ পশুচিকিৎসক আব্দুল্লাহ শেখের দুই পায়ের ও হাতের রগ কেটে দেয়। এ ছাড়া মুবিন শেখ, জিরু কাজী, রবিউল শেখ, শরিফুল ইসলাম, জিল্লুর রহমান, সাইফুল মোল্যাকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করা হয়। আহতদের প্রথমে লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। আহত আব্দুল্লাহ ও মুবিনকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। অবস্থার অবনতি হওয়ায় রোববার আব্দুল্লাহকে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে বলে আব্দুল্লাহর স্ত্রী নার্গিস বেগম জানান।

লোহাগড়া থানার ওসি আবু হেনা মিলন জানান, সংঘর্ষের ঘটনায় ওই গ্রামের সাইফুল ইসলাম বাদী হয়ে রোববার রাতে থানায় একটি মামলা করেছেন। পুলিশ অভিযুক্ত ৯ জনকে আটক করে সোমবার জেলহাজতে পাঠিয়েছে।

মন্তব্য করুন