চট্টগ্রামের কর্ণফুলী উপজেলায় কোরিয়ান শিল্পকারখানায় (কেইপিজেড) চাকরি দেওয়ার কথা বলে এক তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগে দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গতকাল সোমবার আদালতে পাঠালে বিচারক তাদের জেলে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন- আনোয়ারা উপজেলার রায়পুর ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের উত্তর পরুয়াপাড়া গ্রামের মৃত আবদুল মালেকের ছেলে মোহাম্মদ এনাম (২৫) ও লোহাগাড়া উপজেলার সুখছড়ি এলাকার সিরাজুল ইসলামের ছেলে শহিদুল ইসলাম (৩২)। উপজেলার উত্তর বন্দর এলাকার ২ নম্বর ওয়ার্ডের রোকেয়া বেগমের ভাড়া বাসায় অভিযান চালিয়ে গত রোববার রাত ৯টার দিকে তাদের আটক করে কর্ণফুলী থানা পুলিশ।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, মোহাম্মদ এনামের সঙ্গে প্রতিবেশী কামালের মাধ্যমে তরুণীর পরিচয় হয়। এনাম কেইপিজেডের একটি কারখানায় ইলেকট্রিশিয়ান হিসেবে কর্মরত বলে জানান তরুণীকে। গত ১৪ অক্টোবর তরুণীকে সেখানে চাকরি দেওয়ার কথা বলে কাগজপত্র নিয়ে দেখা করতে বলেন এনাম। তরুণী ১৬ অক্টোবর রাত সাড়ে ৮টার দিকে এনামের সঙ্গে কেইপিজেডের প্রধান গেটে দেখা করেন। এনাম তাকে ও তার সঙ্গে থাকা ভাগনিকে শহিদুল ইসলামের বাসায় নিয়ে যান। সেখানে ভাগ্নিকে একটি কক্ষে রেখে এনাম ও শহীদ তরুণীকে গার্মেন্টে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে বাসার অন্য একটি কক্ষে নিয়ে তালাবদ্ধ করে দেন। তরুণীর বাবা এনামের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তার কথায় সন্দেহ সৃষ্টি হয়। পরে তরুণীর বাবা নিজেই ওই বাসায় গিয়ে দরজা খুলতে বললে ভেতর থেকে শহীদ বের হন। এনামকে তরুণীর সঙ্গে দেখতে পান তার বাবা। পরে তরুণী তাকে ধর্ষণের বর্ণনা দেন।

মন্তব্য করুন