বছর না যেতেই কোটি টাকার সড়কে ধস

প্রকাশ: ২৩ মে ২০২০

মো. মাসুম মিয়া, ঘাটাইল (টাঙ্গাইল)

বছর না যেতেই প্রায় কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত এক কিলোমিটার দীর্ঘ সড়কের বিভিন্ন স্থান ধসে গেছে। সেতু থেকেও বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে সড়কটি। ঘাটাইল উপজেলার গৌরাঙ্গী একাশী মাজার হয়ে সাদত চেয়ারম্যানের বাড়ি পর্যন্ত্ম এ সড়কটি পুনঃসংস্কারের দাবিতে ইউএনও বরাবর আবেদন করেছেন এলাকাবাসী।

উপজেলা এলজিইডি অফিস সূত্র জানায়, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে আইআরআইডিপি প্রকল্পের আওতায় উপজেলার গৌরাঙ্গী একাশী মাজার হয়ে সাদত চেয়ারম্যানের বাড়ি পর্যন্ত্ম এক কিলোমিটার দীর্ঘ সড়কটি পাকাকরণে ৯৪ লাখ ৯৪ হাজার ৪৫৫ টাকা বরাদ্দ হয়। সড়কটি পাকাকরণের কাজটি পায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স শোভা এন্টারপ্রাইজ এবং বাস্টত্মবায়ন করে লৌহজাং এন্টারপ্রাইজ। এলাকাবাসীর অভিযোগ, ন্নিমানের নির্মাণসামগ্রী দিয়ে কাজ করা হয়েছে। নির্মাণের বছর না যেতেই তাদের বহুদিনের কাঙ্খিত সড়কটির বিভিন্ন স্থান ধসে গেছে। এ জন্য পুনঃসংস্কারের দাবি জানিয়ে ইউএনও বরাবর আবেদন করেছেন তারা।

আবেদনে এলাকাবাসী উলেস্নখ করেন, নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার বিশ দিন পর থেকেই সড়কের বিভিন্ন অংশ ধসে যেতে থাকে। পরে একটি সেতু থেকেও সড়কটি বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এতে সড়কটি যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে।

ওই গ্রামের বাসিন্দা এবং উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী আরজু বলেন, সড়কটি আমার বাড়ির পাশে হলেও ওই স্থান দিয়ে আমার তেমন যাতায়াত নেই। নজরদারি করা সম্ভব হয়নি। ধসে যাওয়ার বিষয়টি জানতে পেরে পরে সড়কটি পরিদর্শন কওে ঘটনার সত্যতা পেয়েছি।

এ বিষয়ে উপজেলা উপ-সহকারি প্রকৌশলী আশরাফের হোসেন বলেন, লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে পরিদর্শনে গিয়ে অভিযোগের সত্যতা পেয়েছি। রাস্টত্মাটি পুনঃসংস্কার দরকার। এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। ইউএনও অঞ্জন কুমার সরকার বলেন, লিখিত অভিযোগ পেয়ে এ কাজের সঙ্গে সংশিস্নষ্ট দপ্তর, ওই এলাকার ইউপি চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানের সাথে

কথা বলে ঘটনার সত্যতা পেয়েছি। বিষয়টি টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসককে অবহিত করা হয়েছে। তিনি

সড়কটি পুনঃসংস্কার না হওয়া পর্যন্ত্ম বিল ছাড় না করার নির্দেশ দিয়েছেন।