বাউফলে আসামিদের হামলায় বাদী নিহত

প্রকাশ: ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

বাউফল (পটুয়াখালী)প্রতিনিধি

বাউফলে আসামিদের বিরুদ্ধে মামলার বাদী কবির হোসেন বয়াতিকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। কবিরের লাশ উদ্ধার করে পটুয়াখালী হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। অভিযুক্ত কুদ্দুস হাওলাদারকে গ্রেফতার করেছে বাউফল থানা পুলিশ।

রোববার সন্ধ্যায় উপজেলার কনকদিয়া ইউনিয়নের কুম্ভখালী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, কনকদিয়া ইউনিয়নের ওই গ্রামের মোনসেফ বয়াতির ছেলে কবির বয়াতির সঙ্গে একই গ্রামের কুদ্দুস হাওলাদারের জমি ও রাস্তা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এ ঘটনার জেরে গত ২০ মে কবির হোসেনের ছেলে সজীবকে (১৪) স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পথে কুদ্দুস হাওলাদার ও তার দুই ছেলে মারধর করলে কবির হোসেন বাদী হয়ে ২১ মে বাউফল থানায় কুদ্দুস ও তার দুই ছেলেকে আসামি করে একটি ফৌজদারি মামলা করেন। এ মামলায় বাউফল থানা পুলিশ কুদ্দুস ও তার দুই ছেলেকে অভিযুক্ত করে পটুয়াখালী চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে চার্জশিট দাখিল করে। এতে তার দুই ছেলে প্রায় এক মাস জেল খেটে বের হয়। রোববার একই মামলায় আদালতে হাজিরার দিন ধার্য করেন আদালত। এরপর মামলা তুলে নিতে বাদীকে চাপ দেয় প্রতিপক্ষ। এতে রাজি না হওয়ায় গত শনিবার সন্ধ্যায় কনকদিয়া ইউনিয়নের কুম্ভখালী থেকে বাড়ি ফেরার পথে বাদীর ওপর হামলা চালায় কুদ্দুস ও তার ছেলেরা। স্থানীয়রা তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে বাউফল থানায় ভর্তি করলে কবির বয়াতিকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক। রোববার সকালে পটুয়াখালী চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে শুনানিতে অংশ নেওয়ার কথা ছিল তার।

বাউফল থানার ওসি খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, নিহত কবিরের সঙ্গে জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল কুদ্দুস হাওলাদারের। অভিযুক্ত কুদ্দুস হাওলাদারকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। এ ঘটনায় বাউফল থানায় হত্যা মামলা হয়েছে।